Articles in Various Newspapers & Magazines

1.

http://banglamirrornews.com/2017/02/09/language-movement-of-1952-what-makes-us-so-proud-as-a-bengali

2.

http://banglamirrornews.com/2016/12/15/bangladesh-liberation-war-victory-day-my-bitter-sweet-reminiscence

3.

http://banglamirrornews.com/2016/05/20/curry-business-why-i-am-a-proud-owner-of-a-curry-house

4.

https://dailyasianage.com/news/130520/a-diaspora-leader-for-many-to-emulate

5.

https://nenequirer.com/2018/06/19/how-war-and-life-as-a-refugee-inspired-me

6.

https://www.asianaffairs.in/magazine/a-plea-for-humanity

7.

https://www.asianaffairs.in/magazine/justice-must-be-seen-to-be-done

8.

https://www.prothomalo.com/northamerica/article/1563637/কারি-এনেছে-সিলেটের-জৌলুশ?fbclid=IwAR0yV-ejN65xbQkLSXHI9HA1lisClXupOpLb_ZaeQoo4Me2yHn9kN2ImyNU

9.

https://www.prothomalo.com/northamerica/article/1565481/প্রজন্ম-বাংলাদেশ?fbclid=IwAR1HZmAK5hEWtJ5121zKHKtNcceCh9YvJ_i7FPxfqYZ0ximEZeRfLzq_O-c

10. https://www.prothomalo.com/northamerica/article

11. https://www.prothomalo.com/northamerica/article

12. 

13. https://www.prothomalo.com/northamerica/article/1582499/%E0%A6%B6%E0%A6%AE%E0%A6%B6%E0%A7%87%E0%A6%B0%E0%A6%A8%E0%A6%97%E0%A6%B0%E0%A7%87-%E0%A6%87%E0%A6%AA%E0%A6%BF%E0%A6%86%E0%A6%B0%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%B9

Advertisements
Featured post

Media Coverage

Featured post

An interview with TAG TV CANADA

Talking about the Indian election – relations with Bangladesh & Peace with Pakistan.

India & Bangladesh Friendship of Excellence

India & Bangladesh Friendship of Excellence

Imran A. Chowdhury

The core fundamentals of our mutual relation is in essence perpetuates from the human to human relation and camaraderie. Bangladesh and Indian common bondage are multi faceted unlike other neighbouring countries in the world. We share the most porous border lines amongst us in excess of 4000 KM fourth largest land borders in the world. We are interdependent on water resources and the fight against environmental impediments we are walking on the same tight rope. Our common goals to have a democratic governance is one of the brightest examples in the world. It was our common aspirations which led to the fracases of 1971 where they wanted us to not to have a democratic government.

One of the significant examples of our friendship was symbolised by the recent enclaves disputes. This is perhaps one of the finest instances in the world where a 72 years old dispute was resolved amicably in between Bangladesh and India. Although there are historical issues which need to be addressed for solidifying the relation to the pinnacle. Indian people have always been standing shoulder to shoulder with the Bangladeshi population. Even Bangladeshes numerous natural disasters, cyclones, floods, India was the bastion of help and vice versa. The embodiment of the relation thrives due to our mutual trust and respect for each other.

Bangladesh is today standing very tall in the world with a monumental year on year growth in the magnitude of 7% and above and one of the biggest contributor to that growth is our ready made garments and textiles sectors. When Bangladesh is riding above the waves on the contrary the worlds biggest economies are grappling with less than 1-2 percent growths. The growth of this sector will always remain indebted to the technical, commercial, manpower cooperation of India since the very inception of the industry in the mid nineteen eighties. The major contribution for Bangladesh to achieve that height was the backward linkage of Indian raw materials supplies with the quickest possible time to production in within the time frame for export which many have overlooked to notice. During the industrial development in the 80s India was the biggest supplier of textile looms, circular knitting machines, dyeing machines, spinning machines to say the least. Critics might argue otherwise but on the back of financial and business gain for India it was also a win — win situation for Bangladesh too as these industries did not have to wait for months and months for spares, repairs, replenishments and constant flow of raw materials for these mammoth industrial excellence what Bangladesh is experiencing today.

India remains one of the most aspirational travel and tourism destination for millions of Bengalis of Bangladesh. Apart from site seeing and revisiting the roots.All though the partition of India in 1947 divided these tow countries but the blood lineage for many remain the same. There is a huge reliance on the excellence of the Indian medical science and its affordability. Which is a huge sigh of relief for millions of Bengalis. These all are happening due to ongoing relation and friendship of trust that prevail amongst the two friends.

One of the most important of all issues that these two countries are facing is the impromptu rise of religious based violent extremism and terrorism. Bangladesh and India are facing these same avalanches of atrocities, devastation. The cooperation in fighting these menaces to eradicate them once for all is on the top of the agenda . Both the countries are sharing intelligence in between the two states. The threats of cross border and home grown terrorism is perhaps the new front of threats that has emerged in the recent past. Bangladesh being one of the most thickly dense states might attract the perpetrators to breed their vile ideology where the research suggest that poverty and ghettoisation facilitates these disturbances. But with the assistance and cooperation due to our unfathomable depth of mutual friendship both the countries will benefit each other. The camaraderie symbolises the cemented rock solid friendship of these states. May our friendship and cooperation remains forever to symbolise it as the finest relations of trust in the world.

Collected : Bangladesh Liberation war

https://articlegateway.com/index.php/JABE/article/view/1463/1393

A Homage to the People of India

Imran A. Chowdhury 

 

 

 

India & Bangladesh is two states whose consanguinity are only separated by physical border demarcation in the last 72 years. But deep down the camaraderie and feeling for each in communal level is one of the best for any two neighbouring countries in the world. Which was proven during the tumultuous days of Bangladesh Liberation War in 1971. 

 

 

Here I am talking about my personal experience during the 1971 war when we had no choice but to pour into the borders of Indian state of Tripura to save our lives from the brutal onslaught of the barbaric Pakistan army. My family like 10 million others had to seek refuge to India to avoid the Bengali Holocaust perpetrated by the Pakistani military junta. We had to abandon our home on the 17th April 71 and tried to hide in the midst of villages to avoid detection as a family of freedom fighters. Our father is by then already crossed the border to start with proper liberation war by the help of the Indian public and the government. My family was seen as 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

the sore thumb amongst the village folks. We were so exposed as the most conspicuous targets for the killers who were rounding up pro liberation families to annihilate the freedom movement once for all. The villagers were ever so good hosts to give shelter, yet they were very sceptical of us living in their village fearing that for us their village will be attacked, burned, people will be killed, and women and girls will be sexually violated. Which left us with no other alternative but to flee the country. 

 

The great exodus of my life started then and the story thereafter till the 16th

December is the most vivid of all stories of my life.  After a long walk in the paddy fields in the middle of a storm with my 2 younger brothers aged 9 and 6, my sister 15, mother, myself a 10-year-old along with my 17-year brother as the head navigator and guide we ventured out to the unknown. No road direction only to walk east to reach the border. Amid the pricking rain drops walking in the aisles of muddy, slushy, waterlogged arable landscape with mammoth cracking sounds of a thunderstorm was the most fearful journey I have ever endured in my life. The barren lands, no human being in the vicinity; the population were so scared that there was no movement of people nowhere. India was the only safe heaven to go to at that crucial juncture of our lives.

 

After14 hours of walking we poured into the borders ofTripura. Camped outside the border pillar for the night under a tree. Next morning, we ventured into the safe heaven; a breath of fresh air inhaled after a long gruelling fearful 16 days of homelessness destitution & starvation.

 

A new episode of our life started as a refugee. However, it was worth the long walk; the people of India embraced us with their open arms, they immediately gave us shelter, brought hot food. Cleared one of their room for us to live, brought us change of clothes, the people of the village all rallied around us to club together to bring utensils, money to buy some useful things to start our new life. It was one of the most benevolent of acts someone has ever given to us in our life. The Hindus, the Muslims and Buddhist Tripura people all joined in unison to make us welcome to their village. Thereafter, in about 10 days’ time moved into a refugee camp. The life threw us at the deeper end of the spectrum. But I owe a great deal of gratitude to the Government officials, political leaders, local population for their support and hospitality during the whole period of 8 months in India. Life as refugee was hard to cope with. I just came to realise that, Humanity triumphs over everything. We the refugees and the freedom fighters of Bangladesh are forever so indebted to the people and government of India.

 

 

The writer is a freelance writer & historian based in the United Kingdom.

 

 

My Article Published

My Article Published in The Phoenix newspaper ; the voice of the multicultural Great Britain from Birmingham. #history #bangladesh #british #marching #diaspora #multicultural #birmingham #article #newspaper #phoenix #thevoice #greatbritain #published #demonstration

Bangladesh Army; Under a Dynamic Skipper; A New Era – By Imran A. Chowdhury

A new phase of the Bangladesh army has started as firstling in its history since its inception from the days of those tumultuous times during the gloriousliberation war of 1971. Bangladesh for the first time has appointed an indigenous thoroughbred regular commissioned officer from Bangladesh’s epic military academy  A Bhatiary alumnus as its Chief of Army Staff in the month of June 2018. A CAS is picked up out of thousands and a soldier with highest professional excellence that is entrusted with intrinsic sacred responsibility of steering the force in entirety in the quest of finer perfection. If we retrospect we find that officers with exceptional dynamism and charisma were selected as CAS. Critics might argue that at the incipient age there were lack of experience noticed amongst few of them and lacuna in their action but surely all of them left behind their marks more or less in various fields and thus lifted the army to the present stature. However, every individual had their own style of command-some of them emphasised more on training, some had their principal effort on welfare, some gave more importance on infrastructural development and so forth. It can be very logically conjectured that Bangladesh Army had been longing for a professional who being ascended at the helm of entire affair would ensure an importance in all facets and entire gamut of development of the force. Appointment of General Aziz is definitely an excellent news for the soldiers and officers which as the General has always been perceived as an approachable and affable personality by all ranks and files. The General has climbed through the slippery slopes of soldiering from day one; undergoing a precarious 104 weeks of gruelling training regime at the Bangladesh Military Academy and then next 36 years of soldiering from the front line as a field commander. The General has earned profound prowess and dexterity serving in multidimensional capacity and thus showcased himself as a loadstar/benchmark for the next generation.  Which is in essence is the beginning of a new episode in the country.

 

 

Bangladesh army began its journey with the remnants of officers and soldiers of the British colonial era and Pakistan Army. The inception of The Bangladesh army leaped frogged to this pinnacle during the liberation war which symbolises the struggle of the people of Bangladesh’s bloodiest ofall wars. Since then, the army was commanded by total 14 Chiefs of Army Staffs. But this is the beginning of long-commissioned officers of the Bangladesh Army to take over the helm of the affairs of this resplendent army; one of the finest institutions of Bangladesh. The army is currently standing very tall in the world scene with pride and professionalism. Contributing the highest number of its members serving with the United Nation’s peace keeping forces all over the world in all the nook and corner of the globe where they are called for withextremely praised participators. Relatively a newly born army these accolades are extra ordinarily highwhich enhances the image of Bangladesh abroad beyond continents all over kept the banner of glory flying aloft far and wide across the fringe of its geographic boundary. With a strength of 160,000 combatant and another 40,000 non-combatants in the army in Bangladesh, is perhaps one of the largest employers in the country. The army had been through loads of ups and downs and scarcity of resources due to economic constraints as well as other kinds of issues engulfing the reputation in the past; which was established by the people who were in the controlling seats to serve their own ulterior motives mostly to serve their parochial selfish interest and hunger for power. A vicious nexus with the disgruntle politicians they have extensively made use of thearmy in the past. Nevertheless, the army has bounced back and repudiated all those misnomers with its extremely exemplary professionalism in peace and operations which has been engrained in their psyche with the eddy of time and with matured statesmanship from the top. It remained as the unflinching bastion to uphold the independence. The role of the Bangladesh Army has evinced duringmulti faced natural and man-made calamities was perhaps the best of all time. It is viewed by the nation as the pillar of strength, unity and source of inspiration in all of those tumultuous moments. Unlike western world, when army personnel are left to their own devices after the finish their time in the army, Bangladesh army symbolises itself as one of the best benevolent organisations in the country. It supplies the best care for its ex personnel may it be for officers, junior commissioned officers, non-commissioned officers, other ranks both combatant and non-combatant irrespectively. Which is simply a gargantuan a task to accomplish.

 

 

Since the appointment of General Aziz Ahmed as the new Chief of Army Staff last year on the 25th of June 2018; the momentum of reforms and welfare have surpassed all previous records in the past 48 years of the army’s history. As if the army is moving in the highest throttle of its speed with precision, passion and professionalism to say the least. Quiet general whose works speak louder than his words. The army in its lifetime never came across so many changes in these 11 months of his command. The Chief has undertaken a massive overhaul of the age-old system. Under his dynamic leadership, the army is seeing an ‘’ocean of change’’. His passion and his professionalism blended with his long 37 years experiences and the most importantly the farsightedness mingled with his intrinsic ability ofleading his men from the front has enabled him to see the real issues that concern a normal soldier in his day to day life. Bear in mind the General started his career after his commission doing almost all the duties, responsibilities of each ranks during his gruelling 8 weeks of regimentation and thereof his long professional life he has always been in touch with his men in the barracks as a General Staff Officer Grade III as a caption, As a Brigade Major on an infantry brigade as Major, Commanding a few field regiments of artillery units as a Lt Colonel, A sector commander in the Border security forces, As a Brigadier General commanding two Brigades among them an independent formation of an Air DefenceBrigade commander protecting the skies of the country from all sorts of air threats and thereafter the General served as the General officer commanding of an Infantry Division, the next came the biggest of all challenges were bestowed upon him to reorganise, modernise the erstwhile Bangladesh Rifles to Border Guards of Bangladesh; which was one of the most adventurous and herculean tasks of all. It was indeed a trojan job to reorganise and reshape a force which became so disarray after the debacle of 2009. From there the General was successfully appointed as the QMG and GOC ARTDOC; an outfit responsible make the force battle worthy through sound and pragmatic training. These multi- dimensional commands and staff appointments have enriched the General’s professional acumen, resolve and seasoned him hardened enough to take the Baton of the Bangladesh Army for the coveted post of Chief of Army Staff; an epitome of appointment for anysoldier’s career ; Sixth Four Star General of the Countrys history.

 

‘’A soldiers’ General’’ famously coined by the men in their barracks of all army cantonments. TheGeneral is the second Chief of Army Staff who was the Director General for Border Guards of Bangladesh; the biggest para military forces of the country. His appointment as the Director General came aftermath of the calamitous disturbances during the last phases of the erstwhile Bangladesh Rifles – the task assigned to him was probably the biggest of all responsibilities following those tremulous period when he took the helm to rename – re organise – re structure & re brand the force which guards a total of 4430 KM of borders with our neighbouring two states. It’s the fourth largest border mileage in the world. Mammoth 50,000 manpower with 63 battalions (which is in excess of 5 regular Infantry divisions equivalent in strength) with more than 1000 Border Out Posts stretching from Banglabandha (Panchagarh) in the North to Shah Parir Dwip Cape (Teknaf) in the south. From Akhainthong (Bandarban) in the east to Mankasha(Chapai Nawabgonj) in the West. The General commanded the BGB with his iron fist and inter alia the normal administrative chores the period of his command will be remembered by the generations of the border guards for his reforms, leadership, welfare for both serving, retired, martyrs of the liberation war& freedom fighters creating a welfare fund, establishing a full-fledged commercial schedule Bank. 

 

During his tenure as a sector commander and as well as the Director General of BGB; the General was perceived as the public face of the mutiny trial. Under his watch everyone worked extremely hard to bring all the perpetrators of the mutiny to the book. His perseverance of rounding up the culprits of the mutiny and ensured the gathering of all necessary witnesses and evidences to the Honourable Court which lead to the judgement and all known criminal and culprits were given their deserving punishment and he also scrutinised through all the evidences, inquiries and witnesses meticulously so that, no one is punished unjustifiably and not a single innocent is punished. Which has set an example in the judicial history of Bangladesh. His patience, perseverance, impetus has made sure no miscarriage of justice happens during these colossal trials. 

 

 

 

Out of 14 of his predecessors hardly anyone of the ex-chiefs can match his stature in terms of command experiences. It was during the present chief’s time when the country saw a peaceful election and the smooth electoral process of upholding the peoples’ democratic rights. Which isbeyond any doubt and out it was a gigantic task to comply with. Having 100 million voters to cast their votes, voting in excess of 40000 polling stations with circa half million polling booths spread over 55000 square miles wasn’t an easy task to accomplish all in one day. 

 

The incumbent chief has brought multi-dimensional developments for the army namely the renovation, re organising & increasing the war fighting capabilities; where he has yet again proved his prowess of orchestrating military strategy with grand strategy of the county. Arranging an avenue for our troop’s employment in Kingdom of Saudi Arabia, facilities for home building loans, subsidised housing programme for the soldiers, enhancing the medical and treatment facilities for the officers and soldiers parents, offering car loans for officers, expediting Jolshiri housing project programme in first track plus he now plans to build 3000 flats for officers in Jolshiri with arrangements to buy another 33 acres of lands soon. 

 

 

I guess, these all attributes of welfare, camaraderie, professionalism, fellow feeling, passion, care & above all spirit de corpse have been inculcated and embedded in him since his humble upbringing and his period of growing up as an adolescent following the devastating war of liberation ; in which his families enormous contribution helped him understand the importance of having those magnanimous traits. As a student inschool, he had the rare opportunity to see the dynamic leadership of our beloved Father of the Nation; how he was trying to steer the country from a war-torn dilapidated landscape to a thriving Bangladesh. One of his long-cherished dream.

 

 

It is for the first time in the history of Bangladesh that, a prudent, sagacious and discreetChief of Army staff has been chosen by the country who is down to earth, easy going and open to all. A new genre of leadership adorned upon him by none other than our Honourable Prime Minister and we wish and pray that our new skipper of the army will herald a new era for the Bangladesh Army. 

 

 

 

 

Writer is a historian, writer & public speaker based in the United Kingdom

 

 

 

 

Article published in Newspaper

লন্ডন প্রবাসী বাঙ্গালিদের অতি প্রয়োজনীয় একটি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশি হাই কমিশন । প্রায় ৮ লক্ষাধিক বাঙ্গালীর অভিবাসীর ৬০%ই বসবাস করে লন্ডন এবং দক্ষিণ পূর্ব ইংল্যান্ডে। এই বিশাল জনগুষ্ঠি সৌদি আরবের পড়েই দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে আসছে যুগ যুগ ধরে ।
লন্ডন (বিলাত) সকল বাংলাদেশিদের এক স্বপ্নের শহর । সেই ১৬০০ সাল থেকেই আমাদের পুরানো বেঙ্গল ইংল্যান্ড এবং গ্রেট ব্রিটেনের সাথে ব্যবসা বাণিজ্য, আমদানি রপ্তানি সহ জনসম্পদ আদান প্রদানে চলে আসছে । ১৭৭০ সালে বেঙ্গল এই ব্রিটেনে ৮০০ লক্ষ টন স্যূতি কাপড় রফতানি করতো লাঙ্কাশাআইরে তাদের শিল্প বিপ্লব কালীন টেক্সটাইল মিল গড়ে উঠার ও একশ বছর আগে আমরা তাদের কটন এর চাহিদা পুড়ন করতাম বাংলার হস্তলুমে বানানো সেই খাদি এবং খদ্দর বানিয়ে ।
সেই ইতিহাসের পথ ধরে উপনিবেশিক বেঙ্গল আজ একটি স্বাধীন বাংলাদেশ । পৃথিবীর মানচিত্রে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে আপন মহিমায় । উন্নয়নের এক প্রকৃষ্ট উদাহারন আমাদের এই প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ । ১৯৫০ সালের প্রারাম্ভ থেকেই অধুনালপ্ত ইস্ট পাকিস্তান থেকে বর্তমান বাংলাদেশের এক বিশাল জনগোষ্ঠী ক্রমে ক্রমে ঘর বাধা শুরু করেছে আর আমারা গ্রেট ব্রিটেন এ মোট ৮ লক্ষাধিক বাংলাদেশী বসবাস করছি আর এই বাংলাদেশি জনগণের একমাত্র সরকারী কার্যালয় ই আমাদের হাই কমিশন । আমাদের প্রবাসী জনগণের দেশের সাথে কর্মকাণ্ডের একমাত্র সেতুই হল আমাদের সবার প্রিয় এবং প্রয়োজনীয় হাই কমিশন।

আমার ৩০ বছরের প্রবাস জীবনে সারাটা সময় ই দুর থেকে পত্রিকা, রেডিওতে, টেলিভিশনে, মুখরোচক গল্প ও গুজুবে সব সময়ই কেমন জানি একটা বৈমাতৃত্ব সুলভ একটা সম্পর্ক প্রতীয়মান হবার আশঙ্কা অনুধাবন করেছি । অনেক সময় পত্রিকা গুলোতে ও পড়েছি অনেক তিক্ততার গল্প । সব সময় যে সব কিছু সত্য তা সঠিক মনে হতো না – কিন্তু সর্ব সাকুল্যে হাই কমিশন এর কর্মকাণ্ড এবং কর্মকর্তাদের আচরণ নিয়েও অনেক কথা দুর থেকে কর্ণগোচর হত প্রায়শঃ ।
পেশাদার কূটনৈতিক কর্মকর্তা এবং সাংবাদিক কিংবা অভিবাসীদের মধ্যে সব সময়েই উপলব্ধি হত এক ধরনের বৈরিতা। বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় দিবস ও অন্যান্য অনুষ্ঠান গুলো লাগতো কেমন যেন দায়সারা গোছের । ছোট্ট একটা অনুষ্ঠান রুমে মাত্রারিক্ত মেহমান দের আগমনে তিল ধারণের ঠাই হতো না – অতঃপর সিলভার ফয়েল কন্টেনারে এক কন্টেনার চিকেন বিরয়ানী জাতীয় শুখনো, হাড্ডি ঠাণ্ডা, শুষ্ক একটা বাক্স ধরিয়ে দেওয়া হতো অভ্যাগত অতিথিদের । না থাকত কোন পানিও বা ঝোল বা প্লেট কিংবা চামচ অথবা টিস্যু – খেয়ে দেয়ে কালো ডাস্টবিন ব্যাগে কন্টেনার ঢুকিয়ে বিদায় নেওয়া টাই কেমন যেন রেওয়াজে পরিণীত হয়ে গিয়েছিল যুগ যুগ ধরে ।  
ক্যান জানি মনে হতো – আদৌই উহা কি ছিল দৈনতা নাকি সদিচ্ছার অভাব?  
কমউনিটি এর সাথে কোন কর্মচারীর আচরণ কখনোই সৌহার্দ্যপূর্ণ ছিল বলে প্রতিয়মান হতো না । পাসপোর্ট, নো ভিসা, পাওয়ার অফ এটর্নি এবং অন্যান্য সকল প্রকার কনসুলার কর্মকাণ্ডেই ছিল গাফিলতি এবং ওয়েয আরনার বা ট্যাক্স প্রদানকারীদের প্রতি উপনিবেশিক বাবুদের মত আচরণের অনুযোগ ।

কিন্তু, আজ যেন ঐসবের কবর রচনা করে হাই কমিশনের আকাশে উজ্জীবিত হয়েছে এক নতুন সূর্যের । ইংরেজিতে যাকে নাকি বলে ‘’ ওশন চেঞ্জ ‘’। স্বাধীন বাংলাদেশের জন্মের পর থেকে বর্তমান হাই কমিশনের ইমেজ আমার দৃষ্টিতে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ । কি যে অভূতপূর্ব পরিবতন, পরিবর্ধন, আপ্যায়ন, মান ও গুনগত পরিবর্তন সাধিত হয়েছে এই অল্প কয়েক মাসের বব্যধানে সেটা লেখতে গেলে কয়েক দিস্তা কাগজে লিখেও শেষ করে যাবে বলে মনে হয় না । এ যেন বিপ্লব সংগঠিত হয়েছে আমাদেরই প্রিয় হাই কমিশনে । কন্সুলার সার্ভিস, টেলিফোন এ আলাপন, কমউনিটি রিলেশন, পি আর এবং আপ্যায়ন এর মান ও গুনগত পরিবর্তন একেবারে তাক লাগিয়ে দিয়েছে আমার মত অনেক গঠনমুখী সমলোচক ও নিন্দুকদেরকে সমভাবে । আ’ লা’ কার্টে মেনয়ু, তিন থেকে চার কোর্স সিলভার সার্ভিস ডিনার, অফুরন্ত মুখরোচক খাবার, তা’ ডিনার ই হউক, বা বুফএ কিংবা ফিঙ্গার কেনেপিস ই হউক না কেন । বাক্তিগত ভাবে সকল কূটনৈতিকদের দ্বারা আপ্যায়িত হওয়া থেকে শুরু করে – নিজের হাঁতে সারভ করতো; বর্তমান কর্মকর্তারা জয় করে নিয়েছে সম্পূর্ণ কমুইনিটিকে – এটা আমার প্রগলভতা বা চাটুকারিতা নয় এটা কমুনিটির সকলের মনের কথা। যা প্রকাশ করতে আমি এক মুহূর্তও দ্বিধান্বিত নয় । যারা আমাকে চিনে তারা এক বাক্যে স্বীকার করবে যে আমি যা বলি বা লিখি তা আমি অত্যন্ত আবেগতারিত হয়ে মনের ভিতর থেকে আসা বাক্য দিয়েই প্রকাশ করে থাকি সর্বদা ।

কূটনৈতিক দিক থেকে ও বাংলাদেশ হাই কমিশন এবং আমাদের নতুন এবং প্রথম মহিলা হাই কমিশনার একজন দক্ষ এবং অত্যন্ত পারদর্শী কূটনৈতিক হিসেবে নিজেকে অতি অল্প সময়েই কূটনৈতিক, ব্রিটিশ সরকার, হাউজ অফ কমন্সে ও অন্যান্য বিভিন্ন কমনওয়েলথ ভুক্ত দেশ সহ সকল মহলে প্রতিষ্ঠিত করে ফেলেছেন অত্যন্ত দৃঢ় ভাবে । ব্রিটিশ এম পি, মিনিস্টার ও সেক্রেটারি অফ স্টেটস মুখেও আমি নিজে শুনেছি ওনার জয় জয়গান । এত অল্প সময়ে যিনি এখনও মহামান্য রাণী’র সন্নিকটে তার ক্রেডেন্স (আমাদের দেশের রাষ্ট্র প্রধান দ্বারা তাঁহাকে এই দেশের কূটনৈতিক দূত হিসেবে নিয়োগের রাষ্ট্রীয় ফরমান) এখনো প্রদান করেন নাই – অথচ ইতিমধ্যেই উনি লন্ডন তথা ইউরোপের কূটনৈতিক মহলে অতি পরিচিত । আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্রদের লন্ডনস্থ মিশনে সে একজন সমাদৃত অতিথি হিশেবে গণ্য । এক সপ্তাহে দুই দুই জন ব্রিটিশ এম পি আমাকে তার সাথে সাক্ষাত এবং উনার সম্পর্কে অত্যন্ত উচ্চাভিলাষী মন্তব্য করেছেন, যাহা কর্ণগত হওয়ায় আমি যে কি পরিমাণ গর্ববোধ করেছি তা ভাষায় প্রকাশে আমি অপারগ। বিশ্বের বুকে বাংলাদেশি নাড়ীদের এই এম্পওারমেন্ট যে কি গর্বের তা আমি একজন কর্মজীবী সরকারী চাকরিজীবী মায়ের সন্তান হিসেবে জানি এটা যে কত গর্ব করার বিষয় । আর এই এম্পওারমেন্ট এর একমাত্র রূপকার আমাদের শ্রদ্ধেয় জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা আমাদের মহামান্য প্রধানমন্ত্রী । তাঁকে জানাই আমার শ্রদ্ধেয় প্রণাম।

পরিশেষে, ইউ কে প্রবাসী বাংলাদেশি কমুইনিটি এবং বর্তমান হাই কমিশনের আই নব্য রচিত সেতু বন্ধন যেন অটুট থাকে এবং আমাদের এবং কূটনৈতিক সম্প্রদায়ের সাথে গড়ে উঠা এই সৌহার্দ্য সম্পর্ক যেন আগামী দিন গুলোতে আরও সুদৃঢ় হয় ।

বাংলাদেশ হাই কমিশন লন্ডন কে জানাই আমার আন্তরিক ধন্যবাদ। তাঁদের উত্তর উত্তর সমৃদ্ধি কামনা করি । আমাদের সকলের নাগরিক দায়িত্ব এবং কূটনৈতিকদের কর্তব্যের এই সুন্দর বন্ধন যেন বজায় থাকে সর্বদা।

( ইমরান আহমেদ চৌধুরী বৃিটেনের বাংলাদেশী কমউনিটিতে সুপরিচিত মুখ, এছাড়া তার অন্য একটি পরিচয় রয়েছে তিনি একজন সাবেক সেনা অফিসার এবং মুক্তমনের লেখক সমালোচক।)

http://www.bisshobanglanews24.com/nodes/nodes/view/type:news/slug:

লন্ডনে বাংলাদেশি হাই কমিশন ; এক বিশাল বিবর্তন

ইমরান আহমেদ চৌধুরী

লন্ডন প্রবাসী বাঙ্গালিদের অতি প্রয়োজনীয় একটি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশি হাই কমিশন । প্রায় ৮ লক্ষাধিক বাংগালি অভিবাসীর ৬০% ই বসবাস করে লন্ডন এবং দক্ষিণ পূর্ব ইংল্যান্ডে। এই বিশাল জনগুষ্ঠি সৌদি আরবের পড়েই দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে আসছে যুগ যুগ ধরে । লন্ডন ( বিলাত) সকল বাংলাদেশিদের এক স্বপ্নের শহর । সেই ১৬০০ সাল থেকেই আমাদের পুরানো বেঙ্গল ইংল্যান্ড এবং গ্রেট ব্রিটেনের সাথে ব্যবসা বাণিজ্য, আমদানি রপ্তানি সহ জনসম্পদ আদান প্রদানে চলে আসছে । ১৭৭০ সালে বেঙ্গল এই ব্রিটেনে ৮০০ লক্ষ টন স্যূতি কাপড় রফতানি করতো লাঙ্কাশাআইরে তাদের শিল্প বিপ্লব কালীন টেক্সটাইল মিল গড়ে উঠার ও একশ বছর আগে আমরা তাদের কটন এর চাহিদা পুড়ন করতাম বাংলার হস্তলুমে বানানো সেই খাদি এবং খদ্দর বানিয়ে ।

সেই ইতিহাসের পথ ধরে উপনিবেশিক বেঙ্গল আজ একটি স্বাধীন বাংলাদেশ । পৃথিবীর মানচিত্রে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে আপন মহিমায় । উন্নয়নের এক প্রকৃষ্ট উদাহারন আমাদের এই প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ । ১৯৫০ সালের প্রারাম্ভ থেকেই অধুনালপ্ত ইস্ট পাকিস্তান থেকে বর্তমান বাংলাদেশের এক বিশাল জনগোষ্ঠী ক্রমে ক্রমে ঘর বাধা শুরু করেছে আর আমারা গ্রেট ব্রিটেন এ মোট ৮ লক্ষাধিক বাংলাদ্বশি বসবাস করছি আর এই বাংলাদেশি জনগণের একমাত্র সরকারী কার্যলয় ই আমাদের হাই কমিশন । আমাদের প্রবাসী জনগণের দেশের সাথে কর্মকাণ্ডের একমাত্র সেতুই হল আমাদের সবার প্রিয় এবং প্রয়োজনীয় হাই কমিশন কার্যালয় ।

আমার ৩০ বছরের প্রবাস জীবনে সারাটা সময় ই দুর থেকে পত্রিকা, রেডিওতে, টেলিভিশনে, মুখরোচক গল্প ও গুজুবে সব সময় ই কেমন জানি একটা বৈমাতৃও সুলভ একটা সম্পর্ক প্রতীয়মান হবার আশঙ্কা অনুধাবন করেছি । অনেক সময় পত্রিকা গুলোতে ও পড়েছি অনেক তিক্ততার গল্প । সব সময় যে সব কিছু সত্য তা সঠিক মনে হতো না – কিন্তু সর্ব সাকুল্যে হাই কমিশন এর কর্মকাণ্ড এবং কর্মকর্তাদের আচরণ নিয়েও অনেক কথা দুর থেকে কর্ণগোচর হত প্রায়শঃ । পেশাদার কূটনৈতিক কর্মকর্তা এবং সাংবাদিক কিংবা অভিবাসীদের মধ্যে সব সময়েই উপলব্ধি হত এক ধরনের বৈরিতা। বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় দিবস ও অন্যান্য অনুষ্ঠান গুলো লাগতো কেমন যেন দায়সারা গোছের । ছোট্ট একটা অনুষ্ঠান রুমে মাত্রারিক্ত মেহমান দের আগমনে তিল ধারণের ঠাই হতো না – অতঃপর সিলভার ফয়েল কন্টেনারে এক কন্টেনার চিকেন বিরয়ানী জাতীয় শুখনো, হাড্ডি ঠাণ্ডা, শুষ্ক একটা বাক্স ধরিয়ে দেওয়া হতো অভ্যাগত অতিথিদের । না থাকত কোন পানিও বা ঝোল বা প্লেট কিংবা চামচ অথবা টিস্যু – খেয়ে দেয়ে কালো ডাস্টবিন ব্যাগে কন্টেনার ঢুকিয়ে বিদায় নেওয়া টাই কেমন যেন রেওয়াজে পরিণীত হয়ে গিয়েছিল যুগ যুগ ধরে । ক্যান জানি মনে হতো – আদৌই উহা কি ছিল দৈনতা নাকি সদিচ্ছার অভাব ? কমুইনিটি এর সাথে কোন কর্মচারীর আচরণ কখনোই সৌহার্দ্যপূর্ণ ছিল বলে প্রতিয়মান হতো না । পাসপোর্ট, নো ভিসা, পাওয়ার অফ এটর্নি এবং অন্যান্য সকল প্রকার কনুস্লার কর্মকাণ্ডেই ছিল গাফিলতি এবং ওয়েয আরনার বা ট্যাক্স প্রদানকারীদের প্রতি উপনিবেশিক বাবুদের মত আচরণের অনুযোগ ।

কিন্তু, আজ যেন ঐসবের কবর রচনা করে হাই কমিশনের আকাশে উজ্জীবিত হয়েছে এক নতুন সূর্যের । ইংরেজিতে যাকে নাকি বলে ‘’ ওশন চেঞ্জ ‘’। স্বাধীন বাংলাদেশের জন্মের পর থেকে বর্তমান হাই কমিশনের ইমেজ আমার দৃষ্টিতে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ । কি যে অভূতপূর্ব পরিবতন, পরিবর্ধন, আপ্যায়ন, মান ও গুনগত পরিবর্তন সাধিত হয়েছে এই অল্প কয়েক মাসের বব্যধানে সেটা লেখতে গেলে কয়েক দিস্তা কাগজে লিখেও শেষ করে যাবে বলে মনে হয় না । এ যেন বিপ্লব সংগঠিত হয়েছে আমাদেরই প্রিয় হাই কমিশনে । কন্সুলার সার্ভিস, টেলিফোন এ আলাপন, কময়ুনিটি রিলেশন, পি আর এবং আপ্যায়ন এর মান ও গুনগত পরিবর্তন একেবারে তাক লাগিয়ে দিয়েছে আমার মত অনেক গঠনমুখী সমলোচক ও নিন্দুকদেরকে সমভাবে । আ’ লা’ কার্টে মেনয়ু, তিন থেকে চার কোর্স সিলভার সার্ভিস ডিনার, অফুরন্ত মুখরোচক খাবার, তা’ ডিনার ই হউক, বা বুফএ কিংবা ফিঙ্গার কেনেপিস ই হউক না কেন । বাক্তিগত ভাবে সকল কূটনৈতিকদের দ্বারা আপ্যায়িত হওয়া থেকে শুরু করে – নিজের হাঁতে সারভ করতো; বর্তমান কর্মকর্তারা জয় করে নিয়েছে সম্পূর্ণ কমুইনিটিকে – এটা আমার প্রগলভতা বা চাটুকারিতা নয় এটা কমুনিটির সকলের মনের কথা। যা প্রকাশ করতে আমি এক মুহূর্তও দ্বিধান্বিত নয় । যারা আমাকে চিনে তারা এক বাক্যে স্বীকার করবে যে আমি যা বলি বা লিখি তা আমি অত্যন্ত আবেগতারিত হয়ে মনের ভিতর থেকে আসা বাক্য দিয়েই প্রকাশ করে থাকি সর্বদা ।

কূটনৈতিক দিক থেকে ও বাংলাদেশ হাই কমিশন এবং আমাদের নতুন এবং প্রথম মহিলা হাই কমিশনার একজন দক্ষ এবং অত্যন্ত পারদর্শী কূটনৈতিক হিসেবে নিজেকে অতি অল্প সময়েই কূটনৈতিক, ব্রিটিশ সরকার, হাউজ অফ কমন্সে ও অন্যান্য বিভিন্ন কমনওয়েলথ ভুক্ত দেশ সহ সকল মহলে প্রতিষ্ঠিত করে ফেলেছেন অত্যন্ত দৃঢ় ভাবে । ব্রিটিশ এম পি, মিনিস্টার ও সেক্রেটারি অফ স্টেটস মুখেও আমি নিজে শুনেছি ওনার জয় জয়গান । এত অল্প সময়ে যিনি এখনও মহামান্য রাণী’র সন্নিকটে তার ক্রেডেন্স (আমাদের দেশের রাষ্ট্র প্রধান দ্বারা তাঁহাকে এই দেশের কূটনৈতিক দূত হিসেবে নিয়োগের রাষ্ট্রীয় ফরমান) এখনো প্রদান করেন নাই – অথচ ইতিমধ্যেই উনি লন্ডন তথা ইউরোপের কূটনৈতিক মহলে অতি পরিচিত । আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্রদের লন্ডনস্থ মিশনে সে একজন সমাদৃত অতিথি হিশেবে গণ্য । এক সপ্তাহে দুই দুই জন ব্রিটিশ এম পি আমাকে তার সাথে সাক্ষাত এবং উনার সম্পর্কে অত্যন্ত উচ্চাভিলাষী মন্তব্য করেছেন, যাহা কর্ণগত হওয়ায় আমি যে কি পরিমাণ গর্ববোধ করেছি তা ভাষায় প্রকাশে আমি অপারগ। বিশ্বের বুকে বাংলাদেশি নাড়ীদের এই এম্পওারমেন্ট যে কি গর্বের তা আমি একজন কর্মজীবী সরকারী চাকরিজীবী মায়ের সন্তান হিসেবে জানি এটা যে কত গর্ব করার বিষয় । আর এই এম্পওারমেন্ট এর একমাত্র রূপকার আমাদের শ্রদ্ধেয় জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা আমাদের মহামান্য প্রধান মন্ত্রী । তাঁকে জানাই আমার শ্রদ্ধেয় প্রণাম।

পরিশেষে, ইউ কে প্রবাসী বাংলাদেশি কমুইনিটি এবং বর্তমান হাই কমিশনের আই নব্য রচিত সেতু বন্ধন যেন অটুট থাকে এবং আমাদের এবং কূটনৈতিক সম্প্রদায়ের সাথে গড়ে উঠা এই সৌহার্দ্য সম্পর্ক যেন আগামী দিন গুলোতে আরও সুদৃঢ় হয় ।

বাংলাদেশ হাই কমিশন লন্ডন কে জানাই আমার আন্তরিক ধন্যবাদ। তাঁদের উত্তর উত্তর সমৃদ্ধি কামনা করি । আমাদের সকলের নাগরিক দায়িত্ব এবং কূটনৈতিকদের কর্তব্যের এই সুন্দর বন্ধন যেন বজায় থাকে সর্বদা।

We two

An Odyssey of Excellence – Bangladeshi community in the UK

An Odyssey of Excellence – Bangladeshi community in the UK

Imran A. Chowdhury

The journey that began some 65 to 70 years ago from the Ganges
delta’s north eastern tip to the Uk has been an epic story of success and prosperity. Today the descendants of those migrant are standing tall in the British society with their head held high to the pinnacle. 

In excess of 17000 restaurants, 5000 groceries, 3000 other paraphernalia of the auxiliary supporting service echelons of businesses are thriving up and down the whole of the British isles. 

Achievers and entrepreneurs are at the heart of the diaspora. The emblem of their foot prints are exuberantly visible in all almost all parts of Uk and Bangladesh. 

the community is now owning banking, international financial and hedge fund business, world class medical treatment and research and surgical centre and sme’s seen all over Bangladesh which is mostly the landmark investment ventures by the expat community living in the Uk. millions of pounds are pumped in the sylhet region to change the total landscape of the region into a biggest construction site in the country which is turning the district as the main hub for business, investment and convergence of a thriving cosmopolitan — an enclave within the rest of the impoverished parts of Bangladesh – a stark contrast from the rest of the country. 

The progression in the fields of education and qualification of the Bengali diaspora in the Uk needs no evidence to show. Mulberry girls high school in tower hamlets in London is perhaps the biggest example of excellence for the girls of the community. 

the achievement and progression of the diaspora in terms of women empowerment are the just the tip of the iceberg — where 3 of the ladies from the diaspora are sitting in the epitome of the world’s oldest democratic parliament the palace of Westminster. as once it was looked down upon and now a vibrant community with one of the biggest achievers in the country. in the buy to let segment Bangladeshi diaspora in the Uk today have pumped in the biggest resources and every other Bangladeshi now owns second or third property stock. 

knowledge acquired in the uk’s booming catering trade owned by the community is now moving abroad and moving into a new direction of hotels and tourism businesses and there are more then 10 world class tourism theme parked based holiday complexes are the fastest growth sector in Bangladesh. to feed the need for a tourism base for the 160 million population and it’s expanding 

middle class has a room for more than 100 of these kinds of establishments and these are all being initiated by the new generations of expats from the Uk back home. 

Bangladesh being the second largest exporters of ready made garments in the world with a total of $30 billion plus circa is another avenue which the latest generations of Uk based Bangladeshi entrepreneurs are eyeing to siege the opportunity. 

Brexit is now opening many new doors and Bangladesh being one of the oldest trade partners of Uk a relation dating back to 1615 ad some 332 years will give more to bilateral trades dimensions. Bangladesh being the most potential emerging economy in the South east asian region will play the pivotal role of forging stronger ties with the Uk post Brexit. the phenomenal progression of this community from the backwaters of Bangladesh has been a true odyssey of excellence! 

Bengali Holocaust – 25th March 1971

Today is that BLACK NIGHT – when the Pakistan Army started to kill thousands of unarmed Bengalis in the capital city of Dhaka….. 20, 000 people killed in one night.

A Bengali holocaust started.

আজ সেই কালো রাত্রি – যখন পাকিস্তান আর্মি রাতের অন্ধকারে শুরু করেছিল নিরীহ জনগণের উপর এক নির্মম হত্যাযজ্ঞ । এক রাতে বিশ হাজার মানুষ হত্যা করার মাধ্যমে শুরু করেছিল …

বাঙ্গালি হোলওকাস্ট ……..

আমরা তোমাদের ভুলব না !

we shall never forget them !

জাতির পিতার জন্ম বার্ষিকীতে’’

‘’জাতির পিতার জন্ম বার্ষিকীতে’’

ইমরান আহমেদ চৌধুড়ী

সে ডাক সেদিন ছিল  শৃঙ্খল বন্ধনমুক্তির
সে ডাক সেদিন ছিল স্বাধীনতা ও মুক্তির।
 
ও !  মোর নেতা ! কি জাদু যে ছিল তব  সে ডাকে
করেছিল তুমি বীজ বপন  হৃদয়ে স্বাধীনতা নামক শব্দ টাকে ।
 
বাঙ্গালী জাতির সবচে’ উচ্চতার শিখরে দাঁড়ানো  মৃত্যুঞ্জয়ী মহা মানব তিনি
আমরা বাঙ্গালীরা জাতি তাঁহার নিকট আজীবন কত যে ঋণী ।
 
ক্ষণজন্মা সেই মহীয়সী বাংলার আপামর জনতার প্রাণ প্রিয় নেতা
জাতি স্মরণ করবে তোমায় শ্রদ্ধাভরে  যুগ যুগ সর্বদা । 
 
বাংলার মানুষ পারিবে ইহজগতে শোধিতে তোমার অবদান ও সুনাম
লহ ও মোর পিতা;  জাতির শ্রদ্ধাগ্ন, বেদিতে গুলদাস্তা ও প্রণাম । 
 
আসো আজ সকলে করি এক প্রতিজ্ঞা – চলো করি অনুকরণ তাঁর কৃপা 
প্রতিষ্ঠিত করি যেন এই বিশ্বে তাঁরই অনুসৃত অনুকম্পা । 
 

An Ode to our Father of The Nation

An Ode to our Father of The Nation

Imran A Chowdhury

This movement is for emancipation 

This revolution is for liberation.

Oh! Me leader! what a magic was in this call 

You sowed the seed of independence in us all.

The tallest of all sons of my mother Bengal 

We Bengalis are so indebted to your bawl.

Thy shall never be another of your kind 

You are so embedded in our soul & mind.

We shan’t never be able to pay your debt

Please accept our heartfelt homage and respect.

Let’s all promise to emulate his grace

Oh my nation! Thrive & prosper our Bengali race.

Sylhet under east India company

After the great earthquake of 1897 – 8 in Richter scale flattened 90% houses of Sylhet – chattok – jointa – Kulaura – karimganj – sunamganj – silchor – Biswasnath were flattened after that this baton type hospital was built – Alia madrasah – civil surgeons house….

Sylhet was annexed by East India company on 15 th March 1835 by Colonel Listar.

A report on Dacca City in 1840 by the then British Authority

1840 report on Dacca City.. <a href="http://https://www.facebook.com/plugins/post.php?href=https%3A%2F%2Fwww.facebook.com%2Fimranchowdhuryfrsa%2Fposts%2F10156353660727893&width=500“>read more

শামীমা বেগম

কেন যে যায় ওরা নাইচচা ভিনদেশে

করতে কয়েক টা নব্য প্রেম বধুবেসে

নিকাহ ধর্ম যুদ্ধের সৈনিকের সংগে

জায়গা হবে না প্রাচেচ ভুমধ্যে কি বংগে

আরও যাও নাইচচা হতে বালিকা বধু

জীবন টা যেন একটা মস্ত মিসটি কদু

এখন বন্দুকের নল হঠাৎ গেছে ঘুরে

পালিয়ে যেতে হচ্ছে দুরে বহু দুরে

কতকাল আর করবে মস্তিষ্ক বিকৃতি

অনুগ্রহ করে এবার বন্ধ কর মতিগতি

কারা তোমরা করছো মগজটা ধোলাই

করে কি তোয়াককা ঐ বেঈমানরা থোরাই

দু:খ লাগে শরমে মনটা ব্যাথায় সংকিত

দু:সংবাদ আসবে তাহা নিয়ে আতংকিত

বাঁচচা শিশু ও মা’য়ের নিরাপত্তা বিঘ্নিত

মিথ্যুকের মিথ্যা ছবকে নাড়ীরা প্রতারিত

Bangladeshi community in the UK

Write about liberation war at the age of 10 turning into 11. By and large the most horrific experience of my life. The war has made me what I am today. Those dark nights of the year, and the bombing around me. Fear of Death, the destitution.It has made me different human being today.

Remembering my few friends

My course mate

Colonel Emdad in March 1984 met him for the first time after BMA in Rangpur went there for a study period. Stayed the night in his room ….

First time ever we had a heart to heart …. he opened his heart to me…

11 Bengal had the worst CO if my memory is not rusty yet I guess as he expressed to me ! I was shell shocked!!

his was a living life in hell…..

Man like Emdad was almost in tears….

He wasted to be AWOL… I was surprised to hear him …. I was shocked why he is opening up like this to me !!!! Still a 2/Lt we both….

I just came back from ASPTS getting an Alpha …. his unit cancelled 3 courses for him

PT

OMT

SIGNAL course !!!!

Because his boss does not want to send him anywhere ,,,

Emdad was so depressed… was unbelievable. I have never known him in that way…

He told me Dosto I just want to go !!

His guv’nor bullied him that day during study period. In front of others.

We stayed awake all night …. cigarettes ran out … I started to smoke cigarettes from the ashtray …. the butts of smoked cigarettes….

That was the night I found out that I have a great quality of listening and advising and consoling others….

I told him when he told me they are going to hills … ridwans or Nasim or Arif was coming to replace them……” I told him you will be fine in the camps away from the glaring eyes of the hawk…

Sohel n Saiful were going to Jessore at the same time…

I held Emdad in my chest n gave him loads of inspirations and advises and dream of future rosy days knocking him on his door any time soon…..

Told him co’s will come and go I told him according to my calculations 8th long will become Lt colonel in 2001-2002 or 03….. assuming that by them army will streamline itself ….. I also told him jokingly .. that during the passing out parade of 65th BMA long course I would like to be the “commandant” of BMA ….the God was perhaps smiling hearing my wish !!!!

And a loads of futuristic consolations – sold a lot of lofty dreams and added some serration juicy stuff to make his mouth water …….

Little did I know 2.5 years later my luck will have the last laugh at my own expenses…..

That was the last time I saw him last …..

But… after BMA that was the first and last time ….

Never saw him ever….

he must have served under more that 4 more CO’s …

Which I told him…..

That he will serve under another 3/4 more CO’s in his career….

That’s a very poignant yet beautiful reminiscence I have of EMDU…..

A giant of a man : his mysterious smile was worth a million dollars…

Our beloved friend colonel EMDAD was a martyr on the 25th February carnage in Bangladesh….. some 10 years ago..

Amongst the Bastions of Bengali literary Pundits

এক অনবদ্য সন্ধ্যায় বাংলা ছড়া ও কবিতার দুই প্রতিথযশা কবিদের সান্যিধে

প্রিয় …. বাংলা ভাষা নিয়ে কিছু কথোপকথন …. অপূর্ব সমাগম …. বিমুগধ Syed Al Farooque ও দিলু নাসের Mozibul Hoque Moni Muzahid Choudhury Bulbul Hasan

But my Didi from B.Baria Nahid Nazia was not there !!! Missed talking in my favourite বাওনবাইড়ার ভাষা …..

Lutfor Rahman Riton was joy to meet him…..

What an excellent gentleman..

Excellent hospitality from Potrika people…

বাংলা আমার মা

বাংলা আমার প্রাণ

আমি এক গর্বিত বাংগালি ।।।।

A memory of a martyr friend

My course mate

Colonel Emdad in March 1984 met him for the first time after BMA in Rangpur went there for a study period. Stayed the night in his room ….

First time ever we had a heart to heart …. he opened his heart to me…

11 Bengal had the worst CO Col Azad if my memory is not rusty yet I guess !!

his was a living life hell…..

Man like Emdad was almost in tears….

He wasted to be AWOL… I was surprised to hear him …. I was shocked why he is opening up like this to me !!!! Still a 2/Lt we both….

I just came back from ASPTS getting an Alpha …. his unit cancelled 3 courses for him

PT

OMT

SIGNAL course !!!!

Because his boss does not want to send him anywhere ,,,

Emdad was so depressed… was unbelievable. I have never known him in that way…

He told me Dosto I just want go !!

His guv’nor bullied him that day during study period. In front of others.

We stayed awake all night …. cigarette ran out … I started to smoke cigarettes from the ashtray …. the butts of smoked cigarettes….

That was the night I found out that I have a great quality of listening and advising and consoling others….

I told him when he told me they are going to hills … ridwans or Nasim or Arif was coming to replace them……

Sohel n Saiful were going to Jessore at the same time…

I held Emdad in my chest n gave him loads of inspiration and advise and dream of future rosy days knocking him on his door any time soon…..

Told him co’s will come and go I told him according to my calculations 8th long will become Lt colonel in 2001-2002 or 03….. assuming that by them army will streamline itself ….. I also told him jokingly .. that during the passing out parade of 65th BMA long course I would like be the commandant of BMA ….

And a loads of futuristic consolations – sold a lot of lofty dreams and added some serration juicy stuff to make his mouth water …….

Little did I know 2.5 years later my luck will have the last laugh at my own expenses…..

That was the last time I saw him last …..

But… after BMA that was the first and last time ….

Never saw him ever….

he must have served under more that 4 more CO’s …

Which I told him…..

That he will serve under another 3/4 more CO’s in his career….

That’s a very poignant yet beautiful reminiscence I have of EMDU…..

A giant of a man : his mysterious smile was worth a million dollars…

Our beloved friend colonel EMDAD was a martyr on the 25th February carnage in Bangladesh….. some 10 years ago..

Nafiz’s Death Anniversary

মৃদ পায়ে তারিখ আবারও এগিয়ে আসছে ২৫ শে ফেব্রুয়ারির দিকে । ঐ কালো দিনটা কি না আসলে হয় না ?

ঐ কালো দিনে হারিয়েছিলাম আমার ৮ বন্ধুকে – কর্নেল নাফিজ – কর্নেল রেজা – কর্নেল জাহিদ – এলাহী – কায়ছার – মকবুল – কর্নেল আখতার – কর্নেল এমদাদ কে ।

৮ম বি এম এ লং কোর্সের আমার অাটটি কোর্সমেট কে ।

নাফিজ ছিল আমার অন্যতম বেস্ট ফ্রেন্ড । ১৯৮১ সালের অগাস্ট মাসে আমার পা ধরে টেনে রেগিং করানোর মধ্যেই গড়ে উঠেছিল বন্ধুত্ব । খুবই ডিফিক্যালট একজন পারসোনালিটি ছিল ও – কিন্তু দিনে দিনে ক্ষনে ক্ষনে বছরে বছরে নিজের অজান্তেই হয়ে গিয়েছিলাম দুজনে দুজনার খুবই কাছের বন্ধুতে ।

ওর জীবনটা ছিল শুধু হাসি আর হাসানোর রশে পরিপূর্ন । কঠিনতম কসটের মধ্যেও ওর ঠাট্টা – কৌতুক – রসবোধ এবং কটাক্ষ কোনদিন ফুরাতো না ।

পেটুক একটা মানুষ ছিল – খাদ্যের বিবরন শুনলে যে কোন মানুষের মুখে জল আনতে বাধ্য করে ছারতো ।

বগুড়া – মহাস্থানগড় – ধুপচাচীয়া – নাটোর – পাবনা – ক্ষেতলাল – সাত রাস্তার মোড় – সিরাজগঞ্জ – ঢাকা গেট – এয়ারপোরটের পিছনের লেকে – ওলড ডিওএইচএস ২৯/এ আমার বাংলোতে – বংগভবনে আড্ডা মেরে কাটিয়েছি কত বিনিদ্র রজনী ।

সেই সুদুর আফ্রিকাতে ফোন করে ঘন্টার পর ঘন্টা গল্প করা – শেষ কথা ২২ সে ফেব্রুয়ারি ও তার প্রিয় সবজী ও পাংগাস মাছ – রাতা ( মুরগী) আর ছোট মাছের চরচরি রান্নার সামগ্রী কিনতে ব্যস্ত সাতকানীয়া বাজারে তখন হয়েছিল শেষ কথা ……,

তারপর …… আজও অপেক্ষায় …. ইস যদি কথা বলতে পারতাম কিছুক্ষন আর প্রান খুলে হাসতে পারতাম যদি ঘন্টাখানেক ।

ভাল থাকিস নাফাজ – স্টাফ দের দেওয়া নাম – বললেই ক্ষেপতো …..

আই মিস ইউ নাফিজ !!!!

SHAMIMA BEGUM SAGA

Shamima Begum !!!!

A name is on everybody’s lips.

Infamously famous. Brought shame and sympathy. Anger, resentment and denial with full of complacency. But, there is big question which no one seems to ask…..

The question is How is this Shamima’s get to this point of radicalisation?

Who, what , Why, where & when is engaged in twisting these innocent youths’ brains ?

There must be a group of people hiding in the society who are engaged in indoctrinating, recruiting, training, grooming, facilitating, organising these vile ideology.

I guess it’s the biggest prerogative to identify those elements now then ever so that NO MORE SHAMIMA’s are radicalised to follow the same trajectory of fate.

Absolutely disturbed for the last few days by hearing the name Bangladesh in the media…. dragged unnecessarily into the midst of it all.

Bangladesh has nothing to do with it…

It’s not the question where she will go or not, it’s the question that we need to address is

HOW TO STOP THESE MENACES ONFR FOR ALL & ROOT OUT THEM WHO ARE POLLUTING THESE INNOCENT MINDS !!!!!!

My Father’s Liberation War


বাংলাদেশ ; স্বাধীনতা যুদ্ধ ১৯৭১ – আমার স্মৃতি -ইমরান আহমেদ চৌধুরী

স্বাধীনতা যুদ্ধ আমার জীবনের সবচেয়ে বড়ঘটনা , আজ আমি যা’ এটা সম্পূর্ণ ভাবে স্বাধীনতা যুদ্ধের একটা ফসল । ১৯৭১ সাল আমার জীবনের অন্যতম প্রধান একটা সাল যার স্মৃতি এবং মনোস্তাত্তিক ক্ষত গুলো আমি আজও বহন করে চলছি ৪৭ বছর যাবত । জীবন এর এই বন্ধুর পথ অতিক্রম করে আসতে অনেক বাঁধা ও অনেক বিপত্তি পাড় হতে হয়েছে । স্বাধীনতা যুদ্ধ এবং তার ইতিহাস প্রত্যেক দিনই কেই কেই না লিখছেন ; লিখছেন তাঁদের বীরগাথা, শত্রু সৈন্যকে পরাভূত করে কতজন কে হত্যা করেছেন আর কি কি জিনিশ কব্জা করেছেন। আর কে কা’র চেয়ে বড় যোদ্ধা কিংবা কে কার চেয়ে সাহসী ছিলেন অথবা কে যুদ্ধ করেছেন আর আয়েশ করেছেন – যুদ্ধ না করেই কে কতটা ভাগ্য উন্নয়ন করছেন ওসবের কাদা ছুড়াছুরি নিয়ে যেন মশগুল । কিন্তু আশ্চর্য হলেও সত্য যে কেউ লেখে নাই ১৯৭১ সালের বালক কিংবা কিশোর দেড় কথা – কি তাদের সমস্যা বা তাদের মনস্তাথিক অবস্থা । তাদের স্বপ্ন বা তাদের সহযোগিতা বা তাদের অবদান নিয়ে কারোই কোন প্রকার মাথা ঘামানোর মনে হয় কারো অবকাশ হয়ে উঠে নাই। 

যুদ্ধ যে কি জটিল একটা মনোস্তাতিক ব্যাধি তা কেউই তেমন উপলব্ধি করতে পারেন নাই । মনোস্ততো নিয়ে আমার মনে হয় না আমাদের দেশে ১৯৭১ সালের উপর কোন প্রকার গবেষণা করেছেন বলে কোথাও পড়ি নাই বা দেখিও নাই । ১৯৭১ সালের সকল সমস্যা এবং সকল বেদনা, কষ্ট ও মানসিক অসুস্থতা কে নিজে নিজেই মোকাবিলা করা যে বিশাল একটা কাজ তা কাউকে ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব নয় । তাই আজ ৪৭ বছর পর উদ্যোগ নিলাম – আমার স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস আমি নিজেই লিপিবদ্ধ করব – জানিয়ে যেতে যাই সারা বিশ্ব কে ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ টা কতটা বিভীষিকাময় এবং কি জঘন্য এক টা হত্যাযজ্ঞ ছিল । আর ঐ যুদ্ধের মধ্যে আটকে যাওয়া বালক , কিশোরদেড় কি উপর কি ধরনের প্রভাব বিস্তার করেছিল ১৯৭১ সাল। 

আমি আমার এই বই তে একে একে সেই মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু করে, ২৫ সে মার্চ, ২৭ সে মার্চ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া তে প্রতিরোধ গড়ে তোলা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া তে পাকিস্তানি বাহিনীর বিমান হামলা, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পতন, শহর ছেড়ে পলায়ন, গৃহহীন, গ্রাম্যের দিন গুলো অযাতিত অতিথি হিশেবে জীবন যাপন, দেশ ছেড়ে ইন্ডিয়া অভিমুখে মহাপ্রস্থান, রিফুজি হিসেবে নিজেকে আবিষ্কার কড়া, ভারতের জনগণের অতিথি, শরণার্থী শিবিরের দিন গুলি, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকানডে আত্মনিবেশ কড়া, সহযোগী মুক্তি যোদ্ধা হিসেবে রেকি করতে যাওয়া শত্রুর ঘাটীর অবস্থান অবলোকন কড়া, আগরতলা’র জি বি হাসপাতালের আহত মুক্তিযোদ্ধাদের ‘’ জয় বাংলা ওয়ার্ড এ নার্সদের সহযোগী সেবকের দায়িত্ব পালন কড়া এবং ডিসেম্বরের শেষ দিন গুলোতে সংবাদ পত্র বিলি কড়া এবং ১৭ই ডিসেম্বর বিজয়ীর বেসে স্বাধীন বাংলায় প্রত্যাবর্তন কড়া, আমার পিতার মুক্তিযুদ্ধ, আমার ভাইয়ের যুদ্ধ এবং তার আত্মত্যাগ এই নিয়েই সব লিপিবদ্ধ করার সংকল্প নিয়ে আত্মনিবেশ করতে চাই । 

স্মৃতিতে আজও প্রকাশ্য দিবালোকের মত উজ্জ্বল সেই সোনালি, কালো, অন্ধকার অতীতকে জনসম্মুখে আনয়ন করার প্রয়াসেই আমার অভিপ্রায় । জানিয়ে দিতে চাই জাতিকে এবং সারা বিশ্বের পাঠকদের কি বীভৎস ছিল আমার স্বাধীনতা যুদ্ধ ।

বাংলাদেশঃ বাঙ্গালি এবং জাতিসত্তা

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বদ্বীপ আমাদের এই বাংলাদেশ।ঐতিহাসিক পদ্মা,মেঘনা ও  ব্রহ্মপুত্র এই তিনটি নদী নিয়ে গড়ে উঠেছে পৃথিবীর সবচে’বেশী মানুষ অধ্যুষিত জনপদ/বদ্বীপ আমাদের প্রিয় দেশ বাংলাদেশ । বর্তমান বাংলাদেশ এবং ভারতের পশ্চিম বঙ্গ মিলে প্রায় ১ লক্ষ বর্গ মাইলের অধিক এলাকাজুড়ে  এই বদ্বীপ পৃথিবীর অন্যতম প্রধান বদ্বীপ এবং এটাই পৃথিবীর সবচে জনবহুল বদ্বীপ । এক অপূর্ব এ দেশ । সেই আদি কাল থেকে এই  জনপদ কালের সাক্ষী হয়ে আপন মহিমায় মহিমান্বিত। ধন ও ধান্যে পুষ্পে ভরা বাংলার নামেই   পৃথিবীর সবচে বড় উপসাগার এর নামকরণ করছে বে অফ বেঙ্গল হিসেবে সেই কয়েক মিলেনিয়া আগে । ভারত মহাসাগরের এই উপসাগর উত্তরে শ্রীলঙ্কা,তামিলনাড়ু,কেরালা এবং উড়িষ্যা বাংলাদেশ,দক্ষিণে মায়ানমার(বার্মা)হয়ে আন্দমান দ্বীপ পুঞ্জ পেরিয়ে  সেই সুদূর ইন্দোনেশিয়ার সৈকত ছুঁয়েছে অথচ  এই সব কোন দেশের নামে ঐ উপসাগরের না করে  কেন তা’বাংলার নামে ‘’বে অফ বেঙ্গল’’রাখা হয়েছিল নিয়ে একটু ভাবলেই তা’একেবারেই পরিষ্কার,যে এই অঞ্চলের সবচে’প্রসিদ্ধ জনপদ গড়ে উঠেছিল এই বাংলায় সেই প্রাগঐতিহাসিক যুগ থেকেই । বর্তমান বিশ্বে জাতিগত সত্তা হিসেবে  একটি অন্যতম প্রধান জাতি,পৃথিবীর জাতি সকলের মাঝে বাঙ্গালি জাতি ( ২৮১ মিলিওন জনসংখ্যা ) তৃতীয় বৃহতম জাতি,চীনের হা’ন এবং আরব জাতির পরেই বাঙ্গালিদের স্থান।বাংলা ভাষা  পৃথিবীর সপ্তম স্থান অধিকারী ভাষা।


ইতিহাস পর্যালোচনা করলে প্রমাণ মিলে যে এই বাংলাদেশ যা নাকি যুগে যুগে ভিন্ন ভিন্ন নামে পৃথিবীর কাছে পরিচিত ছিল সেই বাংলা ২৪ খ্রিস্টাব্দে রোমান সাম্রাজ্যের রাজ প্রাসাদের  এবং তাঁদের সিনেটের সিনেটর দেড় পরিধেয় সাদা খাঁদির চাদর জাতীয় থান কাপড়  রফতানি করতো। এই বাংলাদেশ ১৭৯০ সালে বছরে  প্রায় ৮ লক্ষ টন সুতি কাপড় রফতানি করতো ইংল্যান্ডে ।ফ্রান্স এর  রসম্রাট নেপোলিয়নের সম্রাজ্ঞী জোসেফিন এর সবচে প্রিয় ড্রেস বানানো হত বাংলার মসলিন কাপড় দিয়ে । 

বাংলার এই অর্থনৈতিক প্রবিদ্ধি ,বাংলার পৃথিবী বিখ্যাত  তাত শিল্প এবং বাংলার মাটির উর্বরতা যুগে যুগে আকৃষ্ট করছে বিদেশী অপশক্তির আগ্রাসন । কিন্তু কোন প্রকার দুঃশাসন কিংবা আগ্রাসন কখনোই ভাঙতে পাড়ে নাই বাংলার সেই ঐতিহ্য কে । 

বাংলার জনপদ,বাংলার গ্রাম,বাংলার শহর,বন্দর গড়ে উঠেছে শাশ্বত বাংলার বাঙ্গালি জাতির ভিন্ন ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের কে ঘিরেই।বাংলা সর্বজনীন যুগ যুগ ধরে বাংলা অত্র অঞ্চলের মাঝে আপন মহিমায় সমাদৃত বাংলার ধর্ম নিরেপেক্ষতার জন্য ।বাংলার মানুষের সবচে’বিশাল সম্পদ এর জনগণ। প্রায় এক হাজার বছর যাবত বাংলায় গড়ে উঠেছে মসুল্মান ,হিন্দু,বৌদ্ধ,খ্রিস্টান এর মিশ্রণে এক জাতিসত্তা – এক অপূর্ব সংমিশ্রণ যেখানে কোন দিন কোন প্রকার আন্তঃ ধর্ম হানাহানি সংগঠিত হয়েছে বলে শোনা যায় নাই।গ্রাম গুলো গড়ে উঠেছে সকল ধরমাঅবলম্বী মানুষের যৌথ প্রচেষ্টায় । স্কুল,কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়,সরকারী এবং বেসরকারি সকল কর্ম কাণ্ড,লেখাপড়া ,বাণিজ্য কোন দিন ছিল না কখনো কোন প্রকার ভেদাভেদ।

যুগে যুগে বাংলার জনগোষ্ঠী সম্মিলিত ভাবেই মোকাবেলা করেছে সকল বাধা বিপত্তি। ১৯৪৭ সালের দেশ বিভাগ এবং পাকিস্তানের সাথে সংযোজিত হওয়া এবং ২৪ বছরের শোষণের বিরুদ্ধে আন্দোলন এর পথ ধরে ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধ সবই হয়েছিল এক প্রতিজ্ঞার আলোকে;আর সেই প্রতিজ্ঞা ছিল বাংলাদেশ হবে একটি ধর্মনিরেপেক্ষ দেশ । যেখানে সকল ধর্মের জনগণের থাকবে সম অধিকার। আমাদের সেই মহান নেতা জাতির জনক তাঁর প্রজ্ঞাপনে স্পষ্ট ভাবেই উচ্চারণ করে গেছেন তাঁর অমোঘ বানী। ৯ মাসের মুক্তিযুদ্ধ সকল ধরনের বাধা বিপত্তি,ত্রিশ লক্ষ জীবনের বিনিময়ে,অগণিত  সকল ধর্মের মা বোনের ইজ্জত পদদলিত হওয়ার মাধ্যমে আমরা ছিনিয়ে এনেছিলাম আমাদের স্বাধীনতা ;এক নতুন স্বপ্ন,এক নতুন প্রত্যয়,এক নতুন ধর্মনিরেপেক্ষ বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যাশায়।

বাংলাদেশ শাশ্বত কাল ধরেই ছিল ধর্মনিরপেক্ষ আগামী দিন গুলোতেও বাংলাদেশ থাকবে ধর্মনিরেপেক্ষ। অতিব গোঁড়া ধর্ম প্রবর্তনকারী অশুভ রাজনৈতিক দল রাজনীতির নামে ধর্ম বিভেদ সৃষ্টিকারী বর্ণচোরারা কোন দিনই তাদের সেই স্বপ্ন বাস্তবে রুপান্তারিত করতে পারবে না । 

আমার সেই ছেলেবেলা,সেই শৈশব,সেই যুবক কালের বাংলাদেশ কে কেউই কোনদিন বদলাতে পারবে না এবং বদলাতে দেওয়া যাবে না । সকল বাংলাদেশি জনগণ আজকের এই স্বল্প সংখ্যক গুষ্টির সেই  সামাজিক ব্যাধি কে  রোধ করবে । আমি চাই আমার সেই সেই স্মৃতি গুলোকে শুধু রোমন্থনই করতে চাই না ,আমি চাই যুগ যুগ ধরে আগামী দিন গুলোতেও যেন আমার এবং সকলের আগামী প্রজন্ম আমার অতীত দিন গুলোর মতই বেড়ে উঠতে পাড়ে ।যেমন আমি নিজে আমার শৈশব এবং কিশোর এর বন্ধু হিন্দু আশিস মজুমদার ,খ্রিস্টান জেমস অলক চৌধুরী,বৌদ্ধ অং সং প্রু, সুমনা চাকমা,কাদিয়ানী বন্ধু ফারুক কিংবা শিয়া বন্ধু বেলাল দেড় নিয়ে জীবন এর সুন্দর প্রহর গুলো অতিবাহিত করেছি – আমি চাই বাংলাদেশ টা ধর্ম নিরপেক্ষতার মহিমায় মহিমান্বিত হয়ে পৃথিবীর বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াক। একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান,একজন শহীদ মুক্তিযোদ্ধার অনুজ এবং নিজে একজন বালক সহযোগী মুক্তিযোদ্ধা হিশেবে দৃঢ় কণ্ঠে বলে সকলকে মনে করিয়ে দিতে চাই যে,বাংলাদেশের স্বাধীনতার অন্যতম প্রতিজ্ঞা ছিল – আমরা বাংলাদেশ কে একটি ধর্মনিরপেক্ষ দেশ হিশেবে প্রতিষ্ঠিত করবো – আসুন আমরা সকলে যেন সেই প্রতিজ্ঞায় অটুট থাকি । 

কবিতা

বহু দিন পর সকালে আকাশে রবি

মনটা হয়ে গেছে কবি

বসে বসে কতকি ভাবি

হৃদয়ে আঁকি কত ছবি

বাংলার সবুজ প্রতিচ্ছবি

আকাশে প্রজ্জলিত রবি

নেই কোলাহল কিংবা দাবি

শিশির স্নাত ঘাসে কিরন রবি

ঝিকমিক প্রিজম এ দেখি ছবি

মনটা কেন যে হতে চায় কবি

১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস:সিলেটের প্রথম বিদ্রোহ : শমশেরনগর

ইমরান আহমেদ চৌধুরী


[প্রথম পর্ব]

৪৬ বছরে ডাইরির পাতা গুলো প্রায় ম্রিয়মাণ । কঠিন হাতের লেখা এক ধরনের ইউনিক এক হাতের লেখা থেকে সারাংশ বের করে লেখা বেশ কষ্টকর ।

৩ উইং ই পি আর এর উইং কম্যান্ডার ২৪  সে মার্চ রাতে হটাত সুবেদার ফজলূল হক চৌধুড়ী ডেকে বললেন চৌধুড়ী সাব গেট ইয়োর কোম্পানি রেডি। এন টি এম টু  ( নোটিস টু মুভ) আওয়ার । গো এন্ড ছিকওর শমশেরনগর এয়ার পোর্ট । এই এস ডিউটি ( ইন্টারনাল সিকুরিটি ডিউটি ) । ওকে রিপোর্ট বাই টুমরো লাস্ট লাইট । টু আই ছি ক্যাপ্টেন গোলাম রসুল উইল জয়েন ইউ সুন । বি রেডি টু রিসিভ হিম । টেক অল আভেলাবেল ম্যানপাওয়ার । থ্রি থ্রি টন ট্রাক এন্ড ওয়ান পিক আপ । ফার্স্ট লাইন পাউছ এমুইনিসন। গো এ এস এ পি । আপ কি উপর হামারা বহুত ভরসা হ্যাঁয় । ইয়ে শালা মালাউন লোগোকি ইয়ে সব বন্ধ হনা চাইয়ে। নেহি তো বহুত পস্তানা প্যাঁরে গি ইয়ে সব কাফির কো । এইসে লেসন দেনা হ্যাঁই তাক্রিবান কাভি বি ইয়ে  পাকিস্তান তোর নে কি আওয়াজ নিহে লে না প্যাঁয়ে –  আপনে শামযহে না মেরে বাত। যা বলা তাই কাজ – মনে মনে একটু খুশীও হল যে যাক হেড কোয়ার্টার থেকে বের হয়ে যেতে পারছি এটাই সৌভাগ্য বলতে হবে । ঐ পাঞ্জাবি  উইং কম্যান্ডার মেজরের কথায় মেজাজ টা একদম খারাপ হয়ে গেলো – ২৪ বছর এক সাথে থেকেও ওরা ভাবছে আন্দোলন বাঙ্গালি হিন্দুরাই করছে মসুল্মানরা  না – অথবা ওদের চোখে আমরা এখনো পুরদমে মসুল্মান না ! মনে হচ্ছিল কষে একটা বাম  গালে  থাপ্পড় মারতে পারলে ভালো লাগত । ওর কথায় বুঝা গেলো পরিষ্কার ওরা আমাদের কতটা অবমাননার চোখে ও ঘৃণার দৃষ্টিতে দেখে । কোন কথা না বলে স্যালুট দিয়ে বেরিয়ে এসে প্লাটুন কম্যান্ডার ও কোম্পানি হাভিলদার মেজর কে ডেকে পাঠাল । ডেকে এনে সব বিফিং দিয়ে দিল ; এক ফাঁকে  রুমে যেয়ে পারসোনাল পয়েন্ট থ্রি টু স্মিথ এন্ড ওয়েসন পিস্তল টা সাথে নিয়ে বেরিয়ে এসে ব্যাটম্যান বাতেন কে বলল সব বেডিং এবং সুইটকেস আই এস ডিউটিতে যাবার জন্য তৈরি করার অর্ডার দিয়ে বেরিয়ে পরল সিভিল কাপড় পড়ে । একটা রিক্সা ব্লু বার্ড ৩ উইং হেড কোয়ার্টার থেকে নিয়ে শহরে চলে গেলো – পরিস্তিতি জানার জন্য ।  অনেক রাতে ফিয়ে এসেই ঘুমিয়ে পরল সকাল রওনা দেবার জন্য ;  টাউন এ গুজব আর গুজব ৩১ পাঞ্জাব রেজিমেন্ট খাডিম নগর এ ক্যাম্প করেছে – শহরে টহল দিচ্ছে অবিরত । জিন্দাবাজার এ মিছিল মিটিং নিষিদ্ধ ; হাল্কা ১৪৪ ধারার মত । রাত নয়টার ভিতর সব দোকান পাঠ বন্ধ। শহর প্রায় খালি – প্রাণহীন রিকাবিবাজার, মেডিকেল কলেজ, অ্যাম্বারখানা সব যেন কেমন থমথমে । 

আখালিয়া থেকে তিন থ্রি টন ভর্তি সৈনিক আর ও শেভ্রলে পিক আপ  এ চার জন আর সামনে ড্রাইভার রফিক ও চৌধুরী সাহেব  । জমাদার স্পিং গুল প্যারেড বুঝিয়ে দিল সর্ব ৯১ জনের কাফেলা নিয়ে ধীর গতিতে বের হয়ে গেলো – কোতে নায়েক ঝুম্মা খান একটু অস্ত্র শস্ত্র দিতে গড়িমসি করছিল – কোম্পানি কমান্ডারের ধমকে ঘাবড়ে যেয়ে সব দিয়ে দিল । রেশন উঠানো হল প্রায় ১৮ দিনের বাকি টা জুরি অথবা তেলিয়াপারার কোম্পানি থেকে নিয়ে আসতে পারবে – ২০ দিনের ফ্রেস এর পয়সা নগদ দিল উইং কোয়ার্টার মাসটার হাভিলদার তাজ মোহাম্মাদ ভাট – একটা বেয়াদব কিসিমের মানুষ সে একটা – । ঠিক সকাল ৮ – ১৫ তে ও কে রিপোর্ট দিয়ে বের হয়ে গেলো ৩ উইং ই পি আর এর ব্রাভো কোম্পানি ৯১ জন কে নিয়ে থেকে গেলো ২১-২২ জন আর ছুটিতে ছিল পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানে মিলিয়ে আরও ১০ জনের মত – ১৬ এবং ১৭ উইং নতুন দুটো ইউনিট দাঁড় করার সময় অনেক সৈনিক ঐ দুটো উইং চলে যাওয়াতে কোম্পানির লোকবল কম। সামনের পিক আপ এ চৌধুরী সাহেব আর শবে শেষ থ্রি টনে জমাদার গুল ।

শহর একদম ঠাণ্ডা – গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে – পুরাতন মেডিকেল কলেজ – চৌহাটটা মোড় ঘুরে জিন্দা বাজার – কোর্ট কাচারি এর পড় সরীসৃপের মত উঠে গেলো দেশ বিখ্যাত কিন ব্রিজে । রাস্তা খালি – পিচ ঢালা পথ শেষ ফেঞ্ছুগঞ্জের রাস্তায় হেরিংবোন খান্দা কন্দর পাড় হয়ে আস্তে আস্তে সহসা এগুতে থাকলো ফেঞ্ছুগঞ্জের উদ্দেশ্যে – ইচ্ছা করেই প্রধান সড়ক না নিয়ে এই পথে আসলো – রাস্তায় রোড ব্লক , গাছ ফেলে রেখে অনেক রাস্তাই তখন বন্ধ ছিল । অল্প রাস্তা তথাপিও মংলা বাজার স্টেশন পর্যন্ত আসতে লেগে গেলো প্রায় এক ঘণ্টা – সব গাড়ি থামিয়ে বিশ্রাম দিয়ে চা টা পান করে নিলো – আসে পাশের রাস্তার খোঁজ খবর ও সব জেনে নিলো। থমথমে পরিস্থিথি – সবার চোখেই কেমন যেন একটা আতঙ্ক আতঙ্ক ভাব । স্টেশন মাসটার এসে বললেন আখাউরা থেকে সায়েস্তাগঞ্জ পর্যন্ত ট্রেন লাইন অনেক জায়গায় উঠিয়ে ফেলেছে । উত্তাল সময় বংগে । ফরহাদ হাভিলদার  মেজর জি ডেকে ক্যানে ক্যানে জিগ্যেস করলো ওরা কয়জন – হাঁতে গুনে বলল স্যার ১ জেসিও , তিন এন সি ও আর ছয় সেপাই পাঞ্জাবি, পাঠান, বালুচ আর বিহারি মিলিয়ে । ফিলিপ্স ছয় ব্যান্ডের রেডিও টা অনেক কসটে অন করে সকাল ১০-৩০ বিবিসি মার্ক টালির সকালের খবর টা শুনার চেষ্টা করেও পারল না । ১১ টার সময় আবার যাত্রা শুরু করলো – দুই ঘণ্টায় আট নয় টা ব্যারিকেড সরিয়ে ফেঞ্চুগঞ্জ আসল । গাড়ি গুলো দেখলেই হুর হুর করে লোক একত্র হয় আর স্লোগানে স্লোগানে এলাকাটাকে মুখরিত করে তুলছিল – সবাই মিলে কৃষক, বৃদ্ধ , আবাল বনিতা সবাই সরব। অত্যন্ত বিশাল বাজার এবং নদীর পাড় ঘেরে গড়ে উঠেছে এক নতুন শহর । টিনের দোতলা – তিনতলা আরত, গদি ঘর, দোকান – নদীর ঘাটে অনেক নৌকা, লঞ্চ, বার্য আর কারগো জাহাজে জনাকীর্ণ । একটা রেস্তরাতে অফিসার রা মধ্যাহ্ ভোজন শেরে নিলো – সৈনিক আর সাথে প্যাক লাঞ্চ জাতীয় কিছু ছিল – কোম্পানি কোয়ার্টার মাসটার হাভিলদার গনি – অনেক বছর যাবত এই কোম্পানিতে – পুরানা ই পি আর এর প্রায় আনপর জাতীয় কিন্তু অত্যন্ত পেশাদার সৈনিক  । ফেঞ্চুগঞ্জ থেকে রওনা হয়ে রাজনাগর ফেলে দুপুর সাড়ে টিন টায় শমশেরনগর এয়ার পোর্ট এ আসলেন অনারা । গেট খুলে দিল এম ও ডী সৈনিক দেখে মনে হল মণিপুরি বা ত্রিপুরা জাতীয় ।

ম্যানেজার গোছের একটা লোক এসে অতিথিদের অভ্যর্থনা জানাল – সবার বেবস্থা দেখিয়ে দিল – হাভিলদার মেজর ফরহাদ আর কিউ এম গনি লেগে গেলো থাকা, শোয়া, লঙ্গর ইত্যাদির জোগাড়ে।

জানতে  পারল যে শহরের ডাক বাংলো তে আরই বেঙ্গল রেজিমেন্ট এসেছে – এই দিক এ এসে নাই এখনো ।

ডাইরির পাতা থেকে নেওয়া – ক্যাম্প সেট করে ফেলতে বললাম আমার লোকদের । ১৯৫৮ সাল থেকে কম্পানির অর্ধেকের এর বেশি জওয়ান এবং এন সি ও দের চিনি । ব্যাটমান বাতেন চৌধুরী কে বললাম আমার জন্য ওয়াচ টাওয়ার বেড রুম রেডি করতে । টাউন থমথমে । দোকান পাঠ খুবই তারাতারিই বন্ধ হয়ে গেছে । জমাদার সাফিন গুল ( স্প্রিং গুল বলে পরিচিত ) অনেক পুরানা বন্ধু সেও নর্থ ওয়েস্ট ফ্রন্টিয়ার প্রদেশের পুলিশ থেকে ১৯৫৮ ই পি আর এ এসেছে । ৬ ফুট ৬ ইঞ্চি লম্বা টক টকে লাল চেহারা এক পাঞ্জাবি মেজর  উইং কমান্ডার রাতে ওর ক্যাম্পে মদ্যপ অবস্থায় এসে খুব বকা ঝকা করে ওকে অপমানিত করতে চেয়েছিল । হটাত গুল ক্ষেপে যেয়ে ঐ মেজর কে এরেস্ট করে রেখে দিয়েছিলো তাই সুবেদার থেকে ডিমোসন করে জমাদার হয়ে গেছে ; বহু পুরানা বন্ধু । সব সময় ছুটি তে গেলে আমার জন্য পেশওয়ার থেকে চপ্পল নিয়ে আসতো। ওকে সালাম দিলাম রানার গোলাম রসুল কে দিয়ে ; অনেকক্ষণ কথা বললাম – বুঝলাম ওরা সব কয়জনই শঙ্কিত এবং একটু ভীত । আমার সবচে বিশ্বস্ত হাভিলদার মেজর ফরহাদ কে ডাকলাম – সিগারেট খেতে খেতে রান ওয়ে দিয়ে হেঁটে হেঁটে বেশ দুরে যেয়ে জিজ্ঞেস করলাম সব সংবাদ । ফরহাদ আমার সাথে খুলনা ৫ উইং, রামগড় এ কাসালং ফায়ারিং এ ছিল তার লাতুতে আমার কোম্পানির কোঁত নায়েক ছিল, ১৯৬৯ এ আমার এ সি আর এর রেকোমেন্ডএসন এ লাঠি টিলা যুদ্ধে ওর কৃতিত্ব সেক্টর কমান্ডার সিতার ই জুরাত লে  কর্নেল  আব্রার হাসন আব্বাসি সাহেব কে রিকুয়েস্ট করে ওর প্রমোশন টা বেবস্থা করে ছিলাম । বাঙ্গালি হাভিলদার মেজর খুবই কম হত পাঞ্জাবিরা সব ভালো ভালো পোস্ট গুলো নিয়ে নিত । গেঁড়াই বাজী নামে অতীব পরিচিত শব্দ । ১৩ বছর এ ও এখনো ই পি আর এর পলিটিক্স বুঝে উঠতে পারি নাই। ফরাহদ বলল স্যার অবস্থা কিন্তু মোটেও ভালো না , পাঞ্জাবি, বালুচি, পাঠান গুলা কে কোন ভাবেই গার্ড পোস্টে বা বাইরে পাঠানো যাবে না। স্যার পাঞ্জাবিরা কিছু একটা করবেই করবে। ভীষণ হারামি এরা । আমাদের এই আন্দোলন কোন ভাবেই বরদাস্ত করবে না । জিজ্ঞেস করলাম ওয়ার লেস সেট কি সেট কড়া হয়ে গেছে ? বলল স্যার রাত ৯ টার ভিতর হয়ে যাবে । বললাম এরিয়া পেট্রল ছাড়া ও রুমে ১ তিন গার্ড লাগাতে – আমার ওয়াচ টাওয়ারে দুইটা হাতিয়ার আর আমার থ্রি এইট  রিভলভার এ ২৪ রাউন্ড গুলি সহ  বাতেন  দিতে আর গোলাম রসুল কে বিস্তারা লাগাতে বল । কোঁতের দরজায় চার পায়া দিয়ে ব্লক করে ওর বিছানা লাগাতে বললাম । মেন গেঁটে লেস নায়েক আরব আলী কে গার্ড কমান্ডার করবার জন্য । ও বলল স্যার সিপাই রা ওগো সাথে কোথা ও বলতে চায় না ।সম্পর্ক প্রায় ভঙ্গুর । সব জওয়ান রা ক্ষুব্ধ ও ঘৃণা করছে সব গুলোকে । বারবার ওকে সাবধান করে দিলাম যাতে কোন রকম অঘটন যেন না ঘটে । ফরহাদ কে বিদায় করে আরেক টা সিগারেট ধরালাম আর পায়চারি করতে করতে করতে ভাবলাম অনেকক্ষণ । ঘড়িতে তাকিয়ে দেখি সাত টা ১১ মিনিট বললাম বাজারে একটা দোকান ও খোলা নেই , অনেক গুলো কুকুর কাঁদছে করুন সুরে , দুরে  কোথাও ট্রেনের আওয়াজ শুনতে পেলাম ।  জুড়িতে মান্নান  কোম্পানি কমান্ডার,লাতুতে কোবাদ আলি আর তামাবিলে বি আর চৌধুরী । বাকি কোম্পানি কমান্ডার সবাই ই পাঞ্জাবি । আরও এক দুইজন বাঙ্গালি থাকলে থাকতেও পাড়ে কিন্তু ঐ মুহূর্তে আর কারো নাম মনে করতে পারছিলাম না । কেবল ঢাকা থেকে বদলি হয়ে আসলাম – ১৬ উইং ই পি আর রেইজ করে – সদ্য ঘোষণা হয়েছে আমাকে পি পি এম  ( পাকিস্তান পুলিস মেডেল ) নাকি দেওয়া হবে ।  সুবেদার মেজর রব আমাকে এর মধ্যে রাতের বেলা  গোপনে নিয়ে গিয়েছিল নেতার সাথে – কি বিশাল তার বেক্তিত্ত  এবং কণ্ঠস্বর । বলল রেডি থেক – ওদেড় কে কোন প্রকারেই বিশ্বাস করা যাবে না । বুঝলাম রব সাহেবের সাথে ওনার নিত্য যোগাযোগ আছে । রব সাহেব সেন্ট্রাল সুবেদার মেজর ই পি আর এর বিশাল ক্ষমতাধারী সে । প্রথম দেখাই অপরিসীম আনুগত্য নিজের অজান্তেই সমর্পণ করে নিরদ্ধিআয় ।রব সাহেব বললেন খুব সাবধান থাকতে । আর কাউকে না জানাতে ঐ মিটিং এর ব্যাপারে ।  ওরা সবাই  বি, বাড়িয়া ওদের মায়ের গার্লস স্কুলে  তে নতুন চাকরী, নতুন জায়গা, বাবুলের সামনে মেট্রিক পরীক্ষা, মুন্না অন্নদা স্কুলে  যাচ্ছে । এর মধ্যে এই সব বেশ ভাবনার ব্যাপার ।

  ১৯৪৬ পর্যন্ত কলকাতার স্কুলে থাকাকালীন সময়ে কি না দেখলাম পাকিস্তান পাকিস্তান চিল্লাচিল্লি আর আজ সব যেন কেমন তাসের ঘরের মত  টলটলায়মান । ২৮ দিনে এক কাপড়ে আব্বা, আম্মা, আর ছোট ওবায়েদ  সহ আধ পেটা খেয়ে না খেয়ে কলকাতা থেকে পূর্ব বাংলায় আসতে লেগেছিল । রাস্তায় হিন্দু কিবা মসুল্মান দুই পক্ষই সমান ভাবে নিগৃহীত করেছিল আমাদের  । হিন্দুদের কাছে আমারা ছিলাম বাঙ্গাল আর মসুলমান দেড় কাছে ছিলাম ” ঐ দেখো কলিকাতার লাট সাহেব রা আসছে ।” অনেক চড়াই উতরাই পাড় হয়ে নতুন  ভাবে জীবন শুরু করলাম বাবা কপর্দকহীন হয়ে গেলো,তার সেই স্যুট টাই পড়া গ্র্যান্ড হোটেলের চাকরী হারিয়ে সে দিন দিন  কেমন যেন প্রাণহীন হয়ে পরল । ১৯১১ সালে সে সিলচর স্কুল থেকে বের হয়ে বিদেশ বিভূঁইতেই  তার নিবাস – ১৯১৮ থেকে ১৯২৩ পর্যন্ত জার্মানি ও বিলাত তে থেকে তারাপর ১৯৪৬ সাল পর্যন্ত কলাকাতাই ছিল তার বাড়ি ঘর সংসার, বন্ধু, বান্ধব, তাস খেলা , রেস কোর্সে  ঘোড়ার রেস এবং দু এক টা ঘোড়ায় বাজী ধরাও ছিল তার  অভ্যাস । সেই সব ফেলে অজ পাড়া গাঁয়ে আব্বা নিজেকে আর আগের মত খুঁজে পেত না ।সব সময় বিষণ্ণ । অভাব সংসারে উপায় না পেয়ে পুলিস এ জয়েন করতে বাধ্য হলাম । এক সময়কার নাম কড়া ছাত্র, মেধাবী বলে পরিচিত খোকা আজ কোথায় আর তারই প্রিয় বন্ধু, কলেজ হোস্টেলের রুম মেট ফৌজদার ক্যাডেট কলেজের ফিজিক্স এর প্রভাষক। খুবই প্রিয় বন্ধু ছিল ওরা। ১9৪৯ বি, বাড়িয়া কলেজের প্রথম ব্যাচ – এলাকার সবার প্রিয় খোকা ভাই । পান্না চাঁচার বুদ্ধিতে সকলকে  না জানিয়েই জয়েন করে ফেলেছিলাম  পুলিশে – অ্যাসিস্ট্যান্ট সাব ইন্সপেক্টর হিসেবে – নাম সর্বস্ব একটা চাকরী , কাজ কড়া লাগে সব লিটারেট কনস্টেবলের মত । কোন দাম নাই কেবল  একটা আশা যে  ডিপারট্মেন্টাল প্রমোশন পেয়ে পেয়ে এক দিন এসডিপিও পর্যন্ত ও হয়ত পৌঁছেতে পারবো হয়ত বা । কেমন যেন কি আশায় বাঁধি খেলাঘর বেদনার বালুচরে। হটাত পুড়তে থাকা সিগারেট এর শেষ অংশ দুই আঙ্গুলের ফাঁকে আগুনে ঝলসে যাবার প্রাক্বালে প্রকিতস্থ হলাম । ফিরে আসলাম বাস্তবে ।

আজ আবার ভাগ্যাকাশে কালো মেঘের ঘনঘটা কেমন যেন একটা থমথমে ভাব । এয়ার পোর্ট এর সেই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় স্লেভ লেবার হিশেবে এলাকার জনগণ দেড় দিয়ে বিমানবন্দর বানানো মেন বিল্ডিং টাই ক্যাম্প – শেষ প্রান্তে সিঁড়ি ঘর আর ওর উপড়েই  ওয়াচ টাওয়ার দুইটা গোলাকৃতি রুম – একটা বাথরুম ও আছে – এক রুমে আমি আর অন্য রুমে ওয়ারলেস সেট অপারেটর  মোস্তাফা আর বাতেন দেড় সবার জায়গা । সোজা উপড় এ উঠে এসে মোস্তাফা কে জিজ্ঞেস করলাম কত দেরী ? বলল স্যার ২০ মিনিটেই ও কে হবে সব । বললাম আমাকে মান্নান সাব অথবা বি আর চৌধুরী সাহেব কে পারলে মিলায়ে দিতে। এখানে প্রসঙ্গত বলে রাখা ভালো পাকিস্তান আমলে একমাত্র  ই পি আর এর কাছেই সারা দেশ ( পূর্ব পাকিস্তান বাপী) এর সব ই পি  আর ক্যাম্পে টর এ টাঁককা টেলিগ্রাম ছিল যা দিয়ে সারা দেশের যে কোন ক্যাম্পে যোগাযোগ কড়া যেত। পোশাক আর খুল্লাম না , নিচে নেমে এসে বললাম রোল কল ডাকো ফল ইন কর সবাই কে । সেন্ট্রি ছাড়া  সবাই একত্রিত হল একটা ছোট বক্তৃতা দিলাম আর বললাম আমারা সরকারী চাকরীজীবী । সকালে পেট্রল এ গেলে কোন পাবলিক এর সাথে যেন কোন প্রকার দুর্ব্যবহার না কড়া হয়। সিপাই আবু বকর আর সিপাই দারু মিয়া দুইজনাই সিলেটী বললাম তোমরা দুইজন সকালে মুফতি ড্রেস লাগায়ে আমার সাথে দেখা করতে বলে । রোল কল ডিসমিস করতে না করতেই মোস্তফা এসে বলল স্যার  রেডি , মান্নান সাহেব প্রস্থুত কথা বলতে । উঠে গেলাম সিঁড়ি বেয়ে সেটের কামড়ায় । মান্নান ভাই এর সাথে অনেক কোড ল্যাঙ্গুয়েজে বাংলা , কুমিল্লা, ঢাকাইয়া এবং কুট্টি ভাষায় কথা বললাম – সেও খুবই আতঙ্কিত – কি হবে , কি করবো। সে আমাকে ক্লিয়ারলি বলল চৌধুরী খবরদার টু আই সি কাপ্টেন গোলাম রসুলের তোমার কোম্পানি কে ভিজিট করতে আসা টা খুবই রহস্যময় । কেয়ারফুল ।আমি ওকে বললাম আমি সিগনাল সেটের পাশেই থাকবো – কোন রকম খবর পেলেই যেন আমাকে জানায় । কথা বলতে বলতেই দুরে কুকুরের কান্না শুনতে পেলাম – নিদারুণ করুন সুরে অনেক গুলো কুকুর কাঁদছে দুরে সেই মনে হলো ট্রেন স্টেশন আর কাছে । হাভিলদার  মেজর ফরহাদ কে ডেকে বললাম তিন সিপাই আর এক জন এন ছি ও হাতিয়ার সহ তৈরি করতে দশ মিনিটের মধ্যে । চতুর্দিকে কেমন যেন থমথমে একটা পরিস্থিতি মনে হল ; বাজার এর প্রহরী কয়েক টা উচ্চস্বরে ডাক দিয়ে নিস্তব্ধ হয়ে গেলো ; কেন জানি সেই ১৯৪৬ সালের কলকাতার থম থমে রাইঅট এর  দিন গুলোর কথা মনে পড়েতে লাগল, একবার বাচ্চাদের চেহারা গুলো ভেসে উঠল মনের পরদায় । বসে বসে  ডাবলু ডি ও হেইছ ডি উইলিস এন্ড ব্রিসটল এর  প্যাকেট থেকে একটা সিগারেট বের করে আগুন টা জ্বালিয়ে বাইরে ওয়াচ টাওয়ারের টারেট এর ক্যানটিলিভার বারান্দায় দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে সিগারেট টা পান করতে লাগলাম । অনেক দুরে দেখতে পেলাম চা বাগানের আলোকিত প্রজ্বলিত বাংলোগুলো আর ফ্যাক্টরির চিমনি গুলো ; নিয়ন লাইটের আলো তে অন্ধকার সেই পারিপার্শ্বিকতার মাঝে মনে হল –  যেন গভীর রাতে হুগলী নদীর মাঝে কোন ইংরেজ কোম্পানির প্রমোদ তরি ভেসে বেড়াচ্ছে আলো বিচ্ছুরিত করতে করতে ; অপূর্ব  সেই দৃশ্য। অনেক দুরে রাতের আঁধারের মাঝে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল খাসি পাহাড়এর ছায়াগুলো  । ভাবলাম সকালে একবার মণিপুরি বস্তিতে যাবো ; চাতলাপুর এবং আসে পাশের এই সব এলাকা আমার খুবই পরিচিত ; সেই কয়েক বছর আগে আমি এই এলাকা ই পি আর এর কোম্পানি কমান্ডার ছিলাম শায়েস্তাগঞ্জ থেকে কুলাউরা পর্যন্ত – কমলগঞ্জ – মনু – ভানুগাছ এলাকার সব মণিপুরি বস্তির ব্রাহ্মণ আর মন্ত্রী গুলো সবাই আমার অতি পরিচিত । ভাবলাম কালকে সময় পেলে পিক আপ টা নিয়ে এক চক্কর ঘুরে আসবো আর প্রিতিম্পাশার নবাব সাহেব কে ও হ্যালো বলে আসব – অনেক গল্প করতে পছন্দ করেন – লাঠি টিলা যুদ্ধের সময় অনেক হেল্প করেছিল ; এই এলাকার ইতিহাস সম্পর্কেও অনেক কিছু জেনেছি নবাব সাহেবের কাছ থেকে । আবোল তাবোল ভাবতে ভাবতে কখন যে হাতের সিগারেট টা শেষ হয়ে গেছে জানতেই পারলাম না – হটাত ফরহাদ ডাকল স্যার আসবো – শুনেই বাস্তবতায় ফিরে এলাম । ও বলল স্যার , আপনার কথা মত ১ তিন পেট্রল পার্টি রেডি । শুনেই নিচে শিরি বেয়ে নেমে আসলাম – সামনে দাঁড়ান ওরা চারজন -আস্তে করে ডেকে কাছে এনে বললাম তোমরা চার জন বাজারের ক্যামোফ্লাজ অবস্থায় টহল দিবে ফাস্ট লাইট পর্যন্ত । কোন রকম সন্দেহজনক কিছু দেখলেই সোজা ক্যাম্পে ২  জন কে পাঠিয়ে দিবা ১  মাইলে বেশি দুরে যাবা না । ওরা সোজা গেঁটের সেনট্রি দেড় বলেই  সবার ঘুম ভাঙ্গিয়ে টাওয়ারে পজিশন নিবে – বাকি দুজন শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অবসারভ করে তারপর এয়ারপোর্টের অন্য পাশ দিয়ে প্রবেশ করবে – পাসওয়ার্ড আবার মনে করিয়ে দিয়ে  বললাম এসেই যেন আমার কাছে রিপোর্ট করে – ওদের বিদায় করলাম –  নায়েক   বাছিত মিয়া আ আমার  ফাইভ উইং  এর  পরিচিত  – বললাম  বাছিত  খুব সাবধান ।  পরিস্থিথি সন্দেহ জনক  । ঐ  পাকিস্তানি  উর্দু ওয়ালা  দেড়  কে  কেন  জানি  আর  বিশ্বাস  করতে  পারছি না  ।  মনটা  কেমন যেন  বিষিয়ে  গেছে ওদের উপর  ।  ইতিমধ্যে  ২৫ সে মার্চ  আমার  ঘড়িতে সকাল তখন  প্রায়  ২  টা পাঁচ বাজে ।

চলবে ……

ইমরান আহমেদ চৌধুরী

লেখক একজন বিলাত এ বসবাসকারী ইতিহাসবিদ – বক্তা এবং যুদ্ধের ইতিহাস সংরক্ষক । 

লেখকের পিতা মেজর  ফজলুল হক চৌধুরীই ছিলেন সেই শমশেরনগর বিদ্রোহের ই পি আর কোম্পানি কম্যান্ডার । উনি কলকাতায় ১৯২৫ সালে জন্মগ্রহণ করেন এবং ২০০৫ সালে মৃত্যু বরন করেছেন। ১৯৭১ সালে জনাব চৌধুরী ই পি আর এর তিন নম্বর উইং এর বি কোম্পানি কমান্ডার থাকা অবস্থায় ওনাকে ২৪ শে মার্চ ১৯৭১ সালে শমশেরনগর বিমানঘাঁটির নিরাপত্তার জন্য ওনার কোম্পানি সহ প্রেরণ কড়া হয়েছিলো । ২৬ মার্চ বিকালে/রাতে  বিবিসি রেডিও এবং শিলং কা ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশন কি বিদেশ বিভাগ রেডিওতে উনি জানতে পারেন যে ২৫ শে মার্চ রাতে ঢাকায় এক বিশাল হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে পাকিস্তানিরা।  রাতের অন্ধকারে কয়েক হাজার নিরস্থ্র মানুষদের ঘুমের মধ্যে ঠাণ্ডা মাথায় হত্যা কড়া হয়েছে । তারপর সিলেট থেকে সিগনাল সেটে জানান হয় যে শমশেরনগরের উদ্দেশ্যে ক্যাপ্টেন গোলাম রসুল কে তার কোম্পানি সহ প্রেরণ কড়া হয়েছে । সকাল নাগাত সে শমশেরনগর পৌঁছে যাবে ; তখনি উনি সিধান্ত নিয়ে ফেলেন বিদ্রোহ করার । ক্যাপ্টেন গোলাম রসুলের গাড়ি বহর এর উপর অ্যামবুশ করার মাধ্যমেই উনি ওনার কোম্পানিকে নিয়ে বিদ্রোহ শুরু করেন ।  তদানিতন সম্পূর্ণ বৃহত্তর সিলেট ই উনিই প্রথম রিভোল্ট করেন পাকিস্তান বাহিনীর বিরুদ্ধে । ঐ অ্যামবুশে ক্যাপ্টেন গোলাম রসুল সহ ২১ জন নিহত হয় ।ওনার কোম্পানির সকল পাঞ্জাবি এবং পশ্চিমাদের ঐ রাতেই হত্যা করে শমশেরনগর পরিত্যাগ করেন – পরে তিনি কমান্ডডেন্ট মানিক চৌধুরী কি নিয়ে অত্র এলাকায় মুক্তিযুদ্ধ সংগঠন করেন – ২৮/২৯ মার্চ মৌলোভী বাজারএ পাকিস্তান বাহিনীর উপর হামলা করেন । ৩০শে মার্চ সিলেট দখল করার অভিযানে অংশ গ্রহণ করেন – তার পড় ৭১ এর অগাস্ট মাস পর্যন্ত ভারতএর ত্রিপুরার  কৈলাসশহর ক্যাম্প করেন এবং ওনার ই পি আর কোম্পানির জওয়ান দেড় কে দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা প্রশিক্ষণ শুরু করান এবং অত্র এলাকায় মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করতে থাকেন । তারপর অক্টোবর মাসে  চতুর্থ সেক্টর আত্মপ্রকাশ করার সময় থেকে উনি সেক্টর সুবেদার মেজর হিশেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন । মাসিমপুর – করিমগঞ্জ এবং ডাউকি তাঁদের হেড কোয়ার্টার স্থান বদল করে করে ডিসেম্বর মাসে ডাউকি দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেন তার কোম্পানি নিয়ে – সিলেট – তামাবিল সড়কের এক্সিস দিয়ে সিলেট দখলের জন্য সিলেট অভিমুখে সম্মুখ সমর করে  করে সিলেট আক্রমণ করেন ; হরিপুরে এসে হরিপুরের যুদ্ধে তার ৫ জন সহযোদ্ধা শহীদ হন তা মধ্যে তার রানার হাভিলদার গোলাম রসুল বীর বিক্রম  ও শাহাদাত বরন করেন এবং পাকিস্তান আর্মি উনার কোম্পানিকে তিন দিক থেকে ঘিরে ফেলে – উপায়ান্তর না পেয়ে উনি সিগনালের মাধ্যমে ৫ গোর্খা রেজিমেন্ট এর নিকট সাহায্য আবেদন করেন । গোর্খা বাহিনী এসে ওনার কোম্পানিকে উদ্ধার করেন সেই যুদ্ধে । আজও হরিপুর এ ১৩ নম্বর মাইল পোস্টের পাশে কালভারট  নিচে কবর খুরে উনি নিজের হাঁতে ওদের সমাহিত করেন – আজও সেই কবর গুলো দাঁড়িয়ে আছে কালের সাক্ষী হয়ে। অতঃপর শালুটিকর এ ইন্ডিয়ান আর্মির ছত্রীসেনা নামার এলাকা উনি এবং ৫ গুর্খা মিলে নিরাপদ করেন । যুদ্দের পর বর্তমান  সিলেটের  ব্লু বার্ড স্কুলে ৪ নম্বর সেক্টর হেড কোয়ার্টার স্থাপন করেন এবং জানুয়ারি ১৯৭২ সালে খাদিমনগর এ ১৮ তম ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্ট উনি  এবং মেজর রব মিলে  প্রতিষ্ঠা করেন । প্রতিষ্ঠাতা সুবেদার মেজর হিশেবে উনি নিজ হাঁতে রাতদিন খেটে  ঐ রেজিমেন্ট এর গোড়াপত্তন করেন  পরবর্তীতে অন্যান্য কর্মকর্তারা যোগদান করেন – ১৮ ইস্ট বেঙ্গলের অধিকাংশ সৈনিক ই ওনার সাথে যুদ্ধ করেছেন – যারা কুলাউরা- জকিগঞ্জ – গোলাপগঞ্জ – জইন্তা এলাকার। পরবর্তীতে উনি পুনরায় ই পি আর থেকে বি ডি এর প্রতিষ্ঠা করেন সবাই মিলে এবং ১৯৮৮ সালে মেজর পদ থেকে অবসর গ্রহণ করেন । ইতিমধ্যে ওনার ১৭ বছর বয়স্ক  প্রথম পুত্র ও মুক্তিযুদ্ধে যোগদান করেন এবং ১১ নভেম্বর ১৯৭১ এ   ব্রাহ্মণবাড়িয়া তে পাকিস্তান আর্মির হাঁতে ধরা পরেন ; দশ দিন পাশবিক অত্যাচার ও নির্যাতন করার পর রমজান ঈদ এর  দিন ২১ সে নভেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার তিতাস নদীর পাড়ে নির্মম ভাবে হত্যা করে তাঁদের লাশ ঐ খানেই ফেলে রাখেন । 

মেজর ফজলুল হক চৌধুরী

medals of Major Fazlul H. Chowdhury
Major Fazlul H. Chowdhury

সূত্র- Major General Md Sarwar Hossain, 1971 Resistance, Resilience & Redemption( Priyomukh prokashon, 2018).pages 84- 87.

Charitable Work; Feeding the Homeless Citizens in New Hope Centre – Northampton

On Wednesday 16th January 2019 we took freshly cooked hot Indian food for the homeless people in Northampton.

It was freezing cold and they enjoyed the food. One of the best feeling.

We need to eradicate this problem from our society with everyone’s help.

River & Bengali

As a Bengali the love for river – hoar – bill – khal – lake or any body of water is unfathomable…..
River makes a Bengali go poetic – make him sing – prompts lines of poetry in him…..
My life in Bangladesh for the first quarter have made my family travel all around the country by boat – steamer – launch – speed boat – dingy- banana tree raft – free hand swimming across rivers like Surma – Titas – Padma – mathavanga – nobogonga- poshur- Chinaire – kopothakkho – ichamoti…..
Night boat trips on moonlit night from Bashantopur to kaligonj to Shatkhira by a country boat on the river ichamoti was one of the most memorable one….
No wonder when I see river Thames makes me remember my attachment to my favourite rivers….
সতত, হে নদ, তুমি পড় মোর মনে
সতত তোমার কথা ভাবি এ বিরলে;
সতত (যেমতি লোক নিশার স্বপনে
শোনে মায়া- মন্ত্রধ্বনি) তব কলকলে
জুড়াই এ কান আমি ভ্রান্তির ছলনে।
বহু দেশ দেখিয়াছি বহু নদ-দলে,
কিন্তু এ স্নেহের তৃষ্ণা মিটে কার জলে?
দুগ্ধ-স্রোতোরূপী তুমি জন্মভূমি-স্তনে।
আর কি হে হবে দেখা?- যত দিন যাবে,
প্রজারূপে রাজরূপ সাগরেরে দিতে
বারি-রুপ কর তুমি; এ মিনতি, গাবে
বঙ্গজ জনের কানে, সখে, সখা-রীতে
নাম তার, এ প্রবাসে মজি প্রেম-ভাবে
লইছে যে নাম তব বঙ্গের সংগীতে।

১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস:সিলেটের প্রথম বিদ্রোহ : শমশেরনগর


ইমরান আহমেদ চৌধুরী

৪৬ বছরে ডাইরির পাতা গুলো প্রায় ম্রিয়মাণ । কঠিন হাতের লেখা এক ধরনের ইউনিক এক হাতের লেখা থেকে সারাংশ বের করে লেখা বেশ কষ্টকর ।

৩ উইং ই পি আর এর উইং কম্যান্ডার ২৪  সে মার্চ রাতে হটাত সুবেদার ফজলূল হক চৌধুড়ী ডেকে বললেন চৌধুড়ী সাব গেট ইয়োর কোম্পানি রেডি। এন টি এম টু  ( নোটিস টু মুভ) আওয়ার । গো এন্ড ছিকওর শমশেরনগর এয়ার পোর্ট । এই এস ডিউটি ( ইন্টারনাল সিকুরিটি ডিউটি ) । ওকে রিপোর্ট বাই টুমরো লাস্ট লাইট । টু আই ছি ক্যাপ্টেন গোলাম রসুল উইল জয়েন ইউ সুন । বে রেডি টু রিসিভ হিম । টেক অল আভেলাবেল ম্যানপাওয়ার । থ্রি থ্রি টন ট্রাক এন্ড ওয়ান পিক আপ । ফার্স্ট লাইন পাউছ এমুইনিসন। গো এ এস এ পি । আপ কি উপর হামারা বহুত ভরসা হ্যাঁয় । ইয়ে শালা মালাউন লোগোকি ইয়ে সব বন্ধ হনা চাইয়ে। নেহি তো বহুত পস্তানা প্যাঁরে গি ইয়ে সব কাফির কো । এইসে লেসন দেনা হ্যাঁই তাক্রিবান কাভি বি ইয়ে  পাকিস্তান তোর নে কি আওয়াজ নিহে লে না প্যাঁয়ে –  আপনে শামযহে না মেরে বাত। যা বলা তাই কাজ – মনে মনে একটু খুশীও হল যে যাক হেড কোয়ার্টার থেকে বের হয়ে যেতে পারছি এটাই সৌভাগ্য বলতে হবে । ঐ পাঞ্জাবি  উইং কম্যান্ডার মেজরের কথায় মেজাজ টা একদম খারাপ হয়ে গেলো – ২৪ বছর এক সাথে থেকেও ওরা ভাবছে আন্দোলন বাঙ্গালি হিন্দুয়াই করছে মসুল্মান না – অথবা ওদের চোখে আমরা এখনো পুরদমে মসুল্মান না ! মনে হচ্ছিল কষে একটা বাম  গালে  থাপ্পড় মারতে পারলে ভালো লাগত । ওর কথায় বুঝা গেলো পরিষ্কার ওরা আমাদের কতটা অবমাননার চোখে ও ঘৃণার দৃষ্টিতে দেখে । কোন কথা না বলে স্যালুট দিয়ে বেরিয়ে এসে প্লাটুন কম্যান্ডার ও কোম্পানি হাভিলদার মেজর কে ডেকে পাঠাল । ডেকে এনে সব বিফিং দিয়ে দিল ; এক ফাঁকে  রুমে যেয়ে পারসোনাল পয়েন্ট থ্রি টু স্মিথ এন্ড ওয়েসন পিস্তল টা সাথে নিয়ে বেরিয়ে এসে ব্যাটম্যান বাতেন কে বলল সব বেডিং এবং সুইটকেস আই এস ডিউটিতে যাবার জন্য তৈরি করার অর্ডার দিয়ে বেরিয়ে পরল সিভিল কাপড় পড়ে । একটা রিক্সা ব্লু বার্ড ৩ উইং হেড কোয়ার্টার থেকে নিয়ে শহরে চলে গেলো – পরিস্তিতি জানার জন্য ।  অনেক রাতে ফিয়ে এসেই ঘুমিয়ে পরল সকাল রওনা দেবার জন্য ;  টাউন এ গুজব আর গুজব ৩১ পাঞ্জাব রেজিমেন্ট খাডিম নগর এ ক্যাম্প করেছে – শহরে টহল দিচ্ছে অবিরত । জিন্দাবাজার এ মিছিল মিটিং নিষিদ্ধ ; হাল্কা ১৪৪ ধারার মত । রাত নয়টার ভিতর সব দোকান পাঠ বন্ধ। শহর প্রায় খালি – প্রাণহীন রিকাবিবাজার, মেডিকেল কলেজ, অ্যাম্বারখানা সব যেন কেমন থমথমে । 

আখালিয়া থেকে তিন থ্রি টন ভর্তি সৈনিক আর ও শেভ্রলে পিক আপ  এ চার জন আর সামনে ড্রাইভার রফিক ও চৌধুরী সাহেব  । জমাদার স্পিং গুল প্যারেড বুঝিয়ে দিল সর্ব ৯১ জনের কাফেলা নিয়ে ধীর গতিতে বের হয়ে গেলো – কোতে নায়েক ঝুম্মা খান একটু অস্ত্র শস্ত্র দিতে গড়িমসি করছিল – কোম্পানি কমান্ডারের ধমকে ঘাবড়ে যেয়ে সব দিয়ে দিল । রেশন উঠানো হল প্রায় ১৮ দিনের বাকি টা জুরি অথবা তেলিয়াপারার কোম্পানি থেকে নিয়ে আসতে পারবে – ২০ দিনের ফ্রেস এর পয়সা নগদ দিল উইং কোয়ার্টার মাসটার হাভিলদার তাজ মোহাম্মাদ ভাট – একটা বেয়াদব কিসিমের মানুষ সে একটা – । ঠিক সকাল ৮ – ১৫ তে ও কে রিপোর্ট দিয়ে বের হয়ে গেলো ৩ উইং ই পি আর এর ব্রাভো কোম্পানি ৯১ জন কে নিয়ে থেকে গেলো ২১-২২ জন আর ছুটিতে ছিল পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানে মিলিয়ে আরও ১০ জনের মত – ১৬ এবং ১৭ উইং নতুন দুটো ইউনিট দাঁড় করার সময় অনেক সৈনিক ঐ দুটো উইং চলে যাওয়াতে কোম্পানির লোকবল কম। সামনের পিক আপ এ চৌধুরী সাহেব আর শবে শেষ থ্রি টনে জমাদার গুল ।

শহর একদম ঠাণ্ডা – গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে – পুরাতন মেডিকেল কলেজ – চৌহাটটা মোড় ঘুরে জিন্দা বাজার – কোর্ট কাচারি এর পড় সরীসৃপের মত উঠে গেলো দেশ বিখ্যাত কিন ব্রিজে । রাস্তা খালি – পিচ ঢালা পথ শেষ ফেঞ্ছুগঞ্জের রাস্তায় হেরিংবোন খান্দা কন্দর পাড় হয়ে আস্তে আস্তে সহসা এগুতে থাকলো ফেঞ্ছুগঞ্জের উদ্দেশ্যে – ইচ্ছা করেই প্রধান সড়ক না নিয়ে এই পথে আসলো – রাস্তায় রোড ব্লক , গাছ ফেলে রেখে অনেক রাস্তাই তখন বন্ধ ছিল । অল্প রাস্তা তথাপিও মংলা বাজার স্টেশন পর্যন্ত আসতে লেগে গেলো প্রায় এক ঘণ্টা – সব গাড়ি থামিয়ে বিশ্রাম দিয়ে চা টা পান করে নিলো – আসে পাশের রাস্তার খোঁজ খবর ও সব জেনে নিলো। থমথমে পরিস্থিথি – সবার চোখেই কেমন যেন একটা আতঙ্ক আতঙ্ক ভাব । স্টেশন মাসটার এসে বললেন আখাউরা থেকে সায়েস্তাগঞ্জ পর্যন্ত ট্রেন লাইন অনেক জায়গায় উঠিয়ে ফেলেছে । উত্তাল সময় বংগে । ফরহাদ হাভিলদার  মেজর জি ডেকে ক্যানে ক্যানে জিগ্যেস করলো ওরা কয়জন – হাঁতে গুনে বলল স্যার ১ জেসিও , তিন এন সি ও আর ছয় সেপাই পাঞ্জাবি, পাঠান, বালুচ আর বিহারি মিলিয়ে । ফিলিপ্স ছয় ব্যান্ডের রেডিও টা অনেক কসটে অন করে সকাল ১০-৩০ বিবিসি মার্ক টালির সকালের খবর টা শুনার চেষ্টা করেও পারল না । ১১ টার সময় আবার যাত্রা শুরু করলো – দুই ঘণ্টায় আট নয় টা ব্যারিকেড সরিয়ে ফেঞ্চুগঞ্জ আসল । গাড়ি গুলো দেখলেই হুর হুর করে লোক একত্র হয় আর স্লোগানে স্লোগানে এলাকাটাকে মুখরিত করে তুলছিল – সবাই মিলে কৃষক, বৃদ্ধ , আবাল বনিতা সবাই সরব। অত্যন্ত বিশাল বাজার এবং নদীর পাড় ঘেরে গড়ে উঠেছে এক নতুন শহর । টিনের দোতলা – তিনতলা আরত, গদি ঘর, দোকান – নদীর ঘাটে অনেক নৌকা, লঞ্চ, বার্য আর কারগো জাহাজে জনাকীর্ণ । একটা রেস্তরাতে অফিসার রা মধ্যাহ্ ভোজন শেরে নিলো – সৈনিক আর সাথে প্যাক লাঞ্চ জাতীয় কিছু ছিল – কোম্পানি কোয়ার্টার মাসটার হাভিলদার গনি – অনেক বছর যাবত এই কোম্পানিতে – পুরানা ই পি আর এর প্রায় আনপর জাতীয় কিন্তু অত্যন্ত পেশাদার সৈনিক  । ফেঞ্চুগঞ্জ থেকে রওনা হয়ে রাজনাগর ফেলে দুপুর সাড়ে টিন টায় শমশেরনগর এয়ার পোর্ট এ আসলেন অনারা । গেট খুলে দিল এম ও ডী সৈনিক দেখে মনে হল মণিপুরি বা ত্রিপুরা জাতীয় ।

ম্যানেজার গোছের একটা লোক এসে অতিথিদের অভ্যর্থনা জানাল – সবার বেবস্থা দেখিয়ে দিল – হাভিলদার মেজর ফরহাদ আর কিউ এম গনি লেগে গেলো থাকা, শোয়া, লঙ্গর ইত্যাদির জোগাড়ে।

জানতে  পারল যে শহরের ডাক বাংলো তে আরই বেঙ্গল রেজিমেন্ট এসেছে – এই দিক এ এসে নাই এখনো ।

ডাইরির পাতা থেকে নেওয়া – ক্যাম্প সেট করে ফেলতে বললাম আমার লোকদের । ১৯৫৮ সাল থেকে কম্পানির অর্ধেকের এর বেশি জওয়ান এবং এন সি ও দের চিনি । ব্যাটমান বাতেন চৌধুরী কে বললাম আমার জন্য ওয়াচ টাওয়ার বেড রুম রেডি করতে । টাউন থমথমে । দোকান পাঠ খুবই তারাতারিই বন্ধ হয়ে গেছে । জমাদার সাফিন গুল ( স্প্রিং গুল বলে পরিচিত ) অনেক পুরানা বন্ধু সেও নর্থ ওয়েস্ট ফ্রন্টিয়ার প্রদেশের পুলিশ থেকে ১৯৫৮ ই পি আর এ এসেছে । ৬ ফুট ৬ ইঞ্চি লম্বা টক টকে লাল চেহারা এক পাঞ্জাবি মেজর  উইং কমান্ডার রাতে ওর ক্যাম্পে মদ্যপ অবস্থায় এসে খুব বকা ঝকা করে ওকে অপমানিত করতে চেয়েছিল । হটাত গুল ক্ষেপে যেয়ে ঐ মেজর কে এরেস্ট করে রেখে দিয়েছিলো তাই সুবেদার থেকে ডিমোসন করে জমাদার হয়ে গেছে ; বহু পুরানা বন্ধু । সব সময় ছুটি তে গেলে আমার জন্য পেশওয়ার থেকে চপ্পল নিয়ে আসতো। ওকে সালাম দিলাম রানার গোলাম রসুল কে দিয়ে ; অনেকক্ষণ কথা বললাম – বুঝলাম ওরা সব কয়জনই শঙ্কিত এবং একটু ভীত । আমার সবচে বিশ্বস্ত হাভিলদার মেজর ফরহাদ কে ডাকলাম – সিগারেট খেতে খেতে রান ওয়ে দিয়ে হেঁটে হেঁটে বেশ দুরে যেয়ে জিজ্ঞেস করলাম সব সংবাদ । ফরহাদ আমার সাথে খুলনা ৫ উইং, রামগড় এ কাসালং ফায়ারিং এ ছিল তার লাতুতে আমার কোম্পানির কোঁত নায়েক ছিল, ১৯৬৯ এ আমার এ সি আর এর রেকোমেন্ডএসন এ লাঠি টিলা যুদ্ধে ওর কৃতিত্ব সেক্টর কমান্ডার সিতার ই জুরাত লে  কর্নেল  আব্রার হাসন আব্বাসি সাহেব কে রিকুয়েস্ট করে ওর প্রমোশন টা বেবস্থা করে ছিলাম । বাঙ্গালি হাভিলদার মেজর খুবই কম হত পাঞ্জাবিরা সব ভালো ভালো পোস্ট গুলো নিয়ে নিত । গেঁড়াই বাজী নামে অতীব পরিচিত শব্দ । ১৩ বছর এ ও এখনো ই পি আর এর পলিটিক্স বুঝে উঠতে পারি নাই। ফরাহদ বলল স্যার অবস্থা কিন্তু মোটেও ভালো না , পাঞ্জাবি, বালুচি, পাঠান গুলা কে কোন ভাবেই গার্ড পোস্টে বা বাইরে পাঠানো যাবে না। স্যার পাঞ্জাবিরা কিছু একটা করবেই করবে। ভীষণ হারামি এরা । আমাদের এই আন্দোলন কোন ভাবেই বরদাস্ত করবে না । জিজ্ঞেস করলাম ওয়ার লেস সেট কি সেট কড়া হয়ে গেছে ? বলল স্যার রাত ৯ টার ভিতর হয়ে যাবে । বললাম এরিয়া পেট্রল ছাড়া ও রুমে ১ তিন গার্ড লাগাতে – আমার ওয়াচ টাওয়ারে দুইটা হাতিয়ার আর আমার থ্রি এইট  রিভলভার এ ২৪ রাউন্ড গুলি সহ  বাতেন  দিতে আর গোলাম রসুল কে বিস্তারা লাগাতে বল । কোঁতের দরজায় চার পায়া দিয়ে ব্লক করে ওর বিছানা লাগাতে বললাম । মেন গেঁটে লেস নায়েক আরব আলী কে গার্ড কমান্ডার করবার জন্য । ও বলল স্যার সিপাই রা ওগো সাথে কোথা ও বলতে চায় না ।সম্পর্ক প্রায় ভঙ্গুর । সব জওয়ান রা ক্ষুব্ধ ও ঘৃণা করছে সব গুলোকে । বারবার ওকে সাবধান করে দিলাম যাতে কোন রকম অঘটন যেন না ঘটে । ফরহাদ কে বিদায় করে আরেক টা সিগারেট ধরালাম আর পায়চারি করতে করতে করতে ভাবলাম অনেকক্ষণ । ঘড়িতে তাকিয়ে দেখি সাত টা ১১ মিনিট বললাম বাজারে একটা দোকান ও খোলা নেই , অনেক গুলো কুকুর কাঁদছে করুন সুরে , দুরে  কোথাও ট্রেনের আওয়াজ শুনতে পেলাম ।  জুড়িতে মান্নান  কোম্পানি কমান্ডার,লাতুতে কোবাদ আলি আর তামাবিলে বি আর চৌধুরী । বাকি কোম্পানি কমান্ডার সবাই ই পাঞ্জাবি । আরও এক দুইজন বাঙ্গালি থাকলে থাকতেও পাড়ে কিন্তু ঐ মুহূর্তে আর কারো নাম মনে করতে পারছিলাম না । কেবল ঢাকা থেকে বদলি হয়ে আসলাম – ১৬ উইং ই পি আর রেইজ করে – সদ্য ঘোষণা হয়েছে আমাকে পি পি এম  ( পাকিস্তান পুলিস মেডেল ) নাকি দেওয়া হবে ।  সুবেদার মেজর রব আমাকে এর মধ্যে রাতের বেলা  গোপনে নিয়ে গিয়েছিল নেতার সাথে – কি বিশাল তার বেক্তিত্ত  এবং কণ্ঠস্বর । বলল রেডি থেক – ওদেড় কে কোন প্রকারেই বিশ্বাস করা যাবে না । বুঝলাম রব সাহেবের সাথে ওনার নিত্য যোগাযোগ আছে । রব সাহেব সেন্ট্রাল সুবেদার মেজর ই পি আর এর বিশাল ক্ষমতাধারী সে । প্রথম দেখাই অপরিসীম আনুগত্য নিজের অজান্তেই সমর্পণ করে নিরদ্ধিআয় ।রব সাহেব বললেন খুব সাবধান থাকতে । আর কাউকে না জানাতে ঐ মিটিং এর ব্যাপারে ।  ওরা সবাই  বি, বাড়িয়া ওদের মায়ের গার্লস স্কুলে  তে নতুন চাকরী, নতুন জায়গা, বাবুলের সামনে মেট্রিক পরীক্ষা, মুন্না অন্নদা স্কুলে  যাচ্ছে । এর মধ্যে এই সব বেশ ভাবনার ব্যাপার ।

  ১৯৪৬ পর্যন্ত কলকাতার স্কুলে থাকাকালীন সময়ে কি না দেখলাম পাকিস্তান পাকিস্তান চিল্লাচিল্লি আর আজ সব যেন কেমন তাসের ঘরের মত  টলটলায়মান । ২৮ দিনে এক কাপড়ে আব্বা, আম্মা, আর ছোট ওবায়েদ  সহ আধ পেটা খেয়ে না খেয়ে কলকাতা থেকে পূর্ব বাংলায় আসতে লেগেছিল । রাস্তায় হিন্দু কিবা মসুল্মান দুই পক্ষই সমান ভাবে নিগৃহীত করেছিল আমাদের  । হিন্দুদের কাছে আমারা ছিলাম বাঙ্গাল আর মসুলমান দেড় কাছে ছিলাম ” ঐ দেখো কলিকাতার লাট সাহেব রা আসছে ।” অনেক চড়াই উতরাই পাড় হয়ে নতুন  ভাবে জীবন শুরু করলাম বাবা কপর্দকহীন হয়ে গেলো,তার সেই স্যুট টাই পড়া গ্র্যান্ড হোটেলের চাকরী হারিয়ে সে দিন দিন  কেমন যেন প্রাণহীন হয়ে পরল । ১৯১১ সালে সে সিলচর স্কুল থেকে বের হয়ে বিদেশ বিভূঁইতেই  তার নিবাস – ১৯১৮ থেকে ১৯২৩ পর্যন্ত জার্মানি ও বিলাত তে থেকে তারাপর ১৯৪৬ সাল পর্যন্ত কলাকাতাই ছিল তার বাড়ি ঘর সংসার, বন্ধু, বান্ধব, তাস খেলা , রেস কোর্সে  ঘোড়ার রেস এবং দু এক টা ঘোড়ায় বাজী ধরাও ছিল তার  অভ্যাস । সেই সব ফেলে অজ পাড়া গাঁয়ে আব্বা নিজেকে আর আগের মত খুঁজে পেত না ।সব সময় বিষণ্ণ । অভাব সংসারে উপায় না পেয়ে পুলিস এ জয়েন করতে বাধ্য হলাম । এক সময়কার নাম কড়া ছাত্র, মেধাবী বলে পরিচিত খোকা আজ কোথায় আর তারই প্রিয় বন্ধু, কলেজ হোস্টেলের রুম মেট ফৌজদার ক্যাডেট কলেজের ফিজিক্স এর প্রভাষক। খুবই প্রিয় বন্ধু ছিল ওরা। ১9৪৯ বি, বাড়িয়া কলেজের প্রথম ব্যাচ – এলাকার সবার প্রিয় খোকা ভাই । পান্না চাঁচার বুদ্ধিতে সকলকে  না জানিয়েই জয়েন করে ফেলেছিলাম  পুলিশে – অ্যাসিস্ট্যান্ট সাব ইন্সপেক্টর হিসেবে – নাম সর্বস্ব একটা চাকরী , কাজ কড়া লাগে সব লিটারেট কনস্টেবলের মত । কোন দাম নাই কেবল  একটা আশা যে  ডিপারট্মেন্টাল প্রমোশন পেয়ে পেয়ে এক দিন এসডিপিও পর্যন্ত ও হয়ত পৌঁছেতে পারবো হয়ত বা । কেমন যেন কি আশায় বাঁধি খেলাঘর বেদনার বালুচরে। হটাত পুড়তে থাকা সিগারেট এর শেষ অংশ দুই আঙ্গুলের ফাঁকে আগুনে ঝলসে যাবার প্রাক্বালে প্রকিতস্থ হলাম । ফিরে আসলাম বাস্তবে ।

আজ আবার ভাগ্যাকাশে কালো মেঘের ঘনঘটা কেমন যেন একটা থমথমে ভাব । এয়ার পোর্ট এর সেই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় স্লেভ লেবার হিশেবে এলাকার জনগণ দেড় দিয়ে বিমানবন্দর বানানো মেন বিল্ডিং টাই ক্যাম্প – শেষ প্রান্তে সিঁড়ি ঘর আর ওর উপড়েই  ওয়াচ টাওয়ার দুইটা গোলাকৃতি রুম – একটা বাথরুম ও আছে – এক রুমে আমি আর অন্য রুমে ওয়ারলেস সেট অপারেটর  মোস্তাফা আর বাতেন দেড় সবার জায়গা । সোজা উপড় এ উঠে এসে মোস্তাফা কে জিজ্ঞেস করলাম কত দেরী ? বলল স্যার ২০ মিনিটেই ও কে হবে সব । বললাম আমাকে মান্নান সাব অথবা বি আর চৌধুরী সাহেব কে পারলে মিলায়ে দিতে। এখানে প্রসঙ্গত বলে রাখা ভালো পাকিস্তান আমলে একমাত্র  ই পি আর এর কাছেই সারা দেশ ( পূর্ব পাকিস্তান বাপী) এর সব ই পি  আর ক্যাম্পে টর এ টাঁককা টেলিগ্রাম ছিল যা দিয়ে সারা দেশের যে কোন ক্যাম্পে যোগাযোগ কড়া যেত। পোশাক আর খুল্লাম না , নিচে নেমে এসে বললাম রোল কল ডাকো ফল ইন কর সবাই কে । সেন্ট্রি ছাড়া  সবাই একত্রিত হল একটা ছোট বক্তৃতা দিলাম আর বললাম আমারা সরকারী চাকরীজীবী । সকালে পেট্রল এ গেলে কোন পাবলিক এর সাথে যেন কোন প্রকার দুর্ব্যবহার না কড়া হয়। সিপাই আবু বকর আর সিপাই দারু মিয়া দুইজনাই সিলেটী বললাম তোমরা দুইজন সকালে মুফতি ড্রেস লাগায়ে আমার সাথে দেখা করতে বলে । রোল কল ডিসমিস করতে না করতেই মোস্তফা এসে বলল স্যার  রেডি , মান্নান সাহেব প্রস্থুত কথা বলতে । উঠে গেলাম সিঁড়ি বেয়ে সেটের কামড়ায় । মান্নান ভাই এর সাথে অনেক কোড ল্যাঙ্গুয়েজে বাংলা , কুমিল্লা, ঢাকাইয়া এবং কুট্টি ভাষায় কথা বললাম – সেও খুবই আতঙ্কিত – কি হবে , কি করবো। সে আমাকে ক্লিয়ারলি বলল চৌধুরী খবরদার টু আই সি কাপ্টেন গোলাম রসুলের তোমার কোম্পানি কে ভিজিট করতে আসা টা খুবই রহস্যময় । কেয়ারফুল ।আমি ওকে বললাম আমি সিগনাল সেটের পাশেই থাকবো – কোন রকম খবর পেলেই যেন আমাকে জানায় । কথা বলতে বলতেই দুরে কুকুরের কান্না শুনতে পেলাম – নিদারুণ করুন সুরে অনেক গুলো কুকুর কাঁদছে দুরে সেই মনে হলো ট্রেন স্টেশন আর কাছে । হাভিলদার  মেজর ফরহাদ কে ডেকে বললাম তিন সিপাই আর এক জন এন ছি ও হাতিয়ার সহ তৈরি করতে দশ মিনিটের মধ্যে । চতুর্দিকে কেমন যেন থমথমে একটা পরিস্থিতি মনে হল ; বাজার এর প্রহরী কয়েক টা উচ্চস্বরে ডাক দিয়ে নিস্তব্ধ হয়ে গেলো ; কেন জানি সেই ১৯৪৬ সালের কলকাতার থম থমে রাইঅট এর  দিন গুলোর কথা মনে পড়েতে লাগল, একবার বাচ্চাদের চেহারা গুলো ভেসে উঠল মনের পরদায় । বসে বসে  ডাবলু ডি ও হেইছ ডি উইলিস এন্ড ব্রিসটল এর  প্যাকেট থেকে একটা সিগারেট বের করে আগুন টা জ্বালিয়ে বাইরে ওয়াচ টাওয়ারের টারেট এর ক্যানটিলিভার বারান্দায় দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে সিগারেট টা পান করতে লাগলাম । অনেক দুরে দেখতে পেলাম চা বাগানের আলোকিত প্রজ্বলিত বাংলোগুলো আর ফ্যাক্টরির চিমনি গুলো ; নিয়ন লাইটের আলো তে অন্ধকার সেই পারিপার্শ্বিকতার মাঝে মনে হল –  যেন গভীর রাতে হুগলী নদীর মাঝে কোন ইংরেজ কোম্পানির প্রমোদ তরি ভেসে বেড়াচ্ছে আলো বিচ্ছুরিত করতে করতে ; অপূর্ব  সেই দৃশ্য। অনেক দুরে রাতের আঁধারের মাঝে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছিল খাসি পাহাড়এর ছায়াগুলো  । ভাবলাম সকালে একবার মণিপুরি বস্তিতে যাবো ; চাতলাপুর এবং আসে পাশের এই সব এলাকা আমার খুবই পরিচিত ; সেই কয়েক বছর আগে আমি এই এলাকা ই পি আর এর কোম্পানি কমান্ডার ছিলাম শায়েস্তাগঞ্জ থেকে কুলাউরা পর্যন্ত – কমলগঞ্জ – মনু – ভানুগাছ এলাকার সব মণিপুরি বস্তির ব্রাহ্মণ আর মন্ত্রী গুলো সবাই আমার অতি পরিচিত । ভাবলাম কালকে সময় পেলে পিক আপ টা নিয়ে এক চক্কর ঘুরে আসবো আর প্রিতিম্পাশার নবাব সাহেব কে ও হ্যালো বলে আসব – অনেক গল্প করতে পছন্দ করেন – লাঠি টিলা যুদ্ধের সময় অনেক হেল্প করেছিল ; এই এলাকার ইতিহাস সম্পর্কেও অনেক কিছু জেনেছি নবাব সাহেবের কাছ থেকে । আবোল তাবোল ভাবতে ভাবতে কখন যে হাতের সিগারেট টা শেষ হয়ে গেছে জানতেই পারলাম না – হটাত ফরহাদ ডাকল স্যার আসবো – শুনেই বাস্তবতায় ফিরে এলাম । ও বলল স্যার , আপনার কথা মত ১ তিন পেট্রল পার্টি রেডি । শুনেই নিচে শিরি বেয়ে নেমে আসলাম – সামনে দাঁড়ান ওরা চারজন -আস্তে করে ডেকে কাছে এনে বললাম তোমরা চার জন বাজারের ক্যামোফ্লাজ অবস্থায় টহল দিবে ফাস্ট লাইট পর্যন্ত । কোন রকম সন্দেহজনক কিছু দেখলেই সোজা ক্যাম্পে ২  জন কে পাঠিয়ে দিবা ১  মাইলে বেশি দুরে যাবা না । ওরা সোজা গেঁটের সেনট্রি দেড় বলেই  সবার ঘুম ভাঙ্গিয়ে টাওয়ারে পজিশন নিবে – বাকি দুজন শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অবসারভ করে তারপর এয়ারপোর্টের অন্য পাশ দিয়ে প্রবেশ করবে – পাসওয়ার্ড আবার মনে করিয়ে দিয়ে  বললাম এসেই যেন আমার কাছে রিপোর্ট করে – ওদের বিদায় করলাম –  নায়েক   বাছিত মিয়া আ আমার  ফাইভ উইং  এর  পরিচিত  – বললাম  বাছিত  খুব সাবধান ।  পরিস্থিথি সন্দেহ জনক  । ঐ  পাকিস্তানি  উর্দু ওয়ালা  দেড়  কে  কেন  জানি  আর  বিশ্বাস  করতে  পারছি না  ।  মনটা  কেমন যেন  বিষিয়ে  গেছে ওদের উপর  ।  ইতিমধ্যে  ২৫ সে মার্চ  আমার  ঘড়িতে সকাল তখন  প্রায়  ২  টা পাঁচ বাজে ।

চলবে ……

ইমরান আহমেদ চৌধুরী

লেখক একজন বিলাত এ বসবাসকারী ইতিহাসবিদ – বক্তা এবং যুদ্ধের ইতিহাস সংরক্ষক । 

লেখকের পিতা ফজলুল হক চৌধুরীই ছিলেন সেই শমশেরনগর বিদ্রোহের ই পি আর কোম্পানি কম্যান্ডার । 

সূত্র- Major General Md Sarwar Hossain, 1971 Resistance, Resilience & Redemption( Priyomukh prokashon, 2018) pages 84- 87.


A WordPress.com Website.

Up ↑

%d bloggers like this: